জ্যোতিষশাস্ত্র

সরস্বতী পুজোর দিন ভুলেও এই কাজগুলি করবেন না, তাহলেই মহাবিপদ

আগামীকাল, বৃহস্পতিবার সরস্বতী পুজো। নানান শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তো বটেই, বাড়ি বাড়িও হয় এই পুজো। মাঘ মাসের শুক্লপক্ষের পঞ্চমী তিথিতে পালিত হয় বসন্ত পঞ্চমী। এদিন থেকেই সূচনা হয় বসন্ত ঋতুর। এদিন বাগদেবীর বন্দনা করেন সকলে। এই তিথি প্রকৃতির সঙ্গে সম্পর্ক যুক্ত কারণ এই তিথি থেকেই সূচনা হয় নতুন ঋতুর।

এই সরস্বতী পুজোর দিন কিছু কিছু কাজ একেবারেই করা উচিত নয়। জেনে নিন, বসন্ত পঞ্চমীর দিন কোন কাজগুলি করবেন আর কোন কাজগুলি করবেন না-

  • শাস্ত্রে বলা রয়েছে, বসন্ত পঞ্চমীতে হলুদ রঙের পোশাক পরা অত্য়ন্ত শুভ। হলুদ না হলে বাসন্তী, সাদা বা কমলা রঙের পোশাক পরা যেতে পারে। তবে এই দিনে ভুলেও কেউ কালো রঙের পোশাক পরবেন না।
  • বসন্ত পঞ্চমীতে কালো পোশাক অশুভ প্রভাব নিয়ে আসে।
    সরস্বতী পুজোর দিন সকালে উঠেই স্নান সেরে নেওয়া উচিত। এদিন ভুলেও স্নান না করে খাবার খাওয়া উচিত নয়, এটি করা অশুভ বলে মনে করা হয়। স্নান সেরে অঞ্জলি দিয়ে তবেই খাবার মুখে তুলুন।
  • সরস্বতী পুজো বা বসন্ত পঞ্চমীর দিনটি লেখাপড়া শুরু করার জন্য উপযুক্ত। এদিন সমস্ত ছাত্র-ছাত্রীদের শুদ্ধ মনে বাগদেবীর আরাধনা করতে পরামর্শ দেওয়া হয়।
  • খেয়াল রাখবেন সরস্বতী পুজোর সময় জ্বালানো প্রদীপ জ্বালা যেন কোনও ভাবে পুজোর মধ্যে নিভে না যায়। পুজো চলার মধ্যেই কোনও ভাবে প্রদীপ নিভে যাওয়া অত্যন্ত অমঙ্গলের সূচনা করে বলে প্রচলিত বিশ্বাস।
  • সরস্বতী পুজোর দিন সেলাইয়ের কোনও কাজ না করাই ভালো।
  • বসন্ত পঞ্চমীর দিন কেউ মাছ-মাংস বা আমিষ খাবার খাবেন না। এদিন ম’দ্যপান থেকেও বিরত থাকা উচিত।
  • সরস্বতী পুজোর দিন কখনও কাউকে খারাপ কথা বলবেন না। কারণ প্রচলিত বিশ্বাস অনুসারে এদিন দেবী সরস্বতী আমাদের জিহ্বায় অবস্থান করেন। তাই এদিন নিজের ক্রোধ নিয়ন্ত্রণে রাখতে হয়।
  • সরস্বতী পুজোর দিন কৃষক বন্ধুদের ফসল কাটতে নিষেধ করা হয়। শুধু তাই নয়, এদিন বাড়ির কোনও গাছ কাটাও উচিত নয়। বরং সরস্বতী পুজোয় বাড়িতে কোনও গাছ বসানো খুবই শুভ বলে মনে করা হয়।
  • সরস্বতী পুজোর সময় অবশ্যই পড়ার বই, ছবি আঁকার তুলি বা সঙ্গীতের সরঞ্জাম থাকলে তা দেবীর সামনে রেখে আসা উচিত। এগুলির উপর দেবীর কৃপাদৃষ্টি বর্ষিত হয় বলে মনে করা হয় এবং এই সব ক্ষেত্রে সাফল্য লাভ করা যায়।

Related Articles

Back to top button