বিনোদন

মায়ার বাঁধন!ছাগশিশুকে স্তন্যপান করাচ্ছে পথের কুকুর! ব্যতিক্রমী এই ঘটনা নজর কাড়লো সকলের

সম্পর্ক প্রতিপালিত হয় মায়ার বাঁধনে। আবার আশ্চর্যজনক নানান ব্যতিক্রমী ঘটনাও ঘটে থাকে। এমন একটি অতি আশ্চর্যজনক ঘটনা ঘটেছে পূর্ব বর্ধমান জেলার ভাতার বিধানসভা কেন্দ্রের খারজুলি গ্রামে। সেখানে সারমেয় মা স্তন্যপান করিয়ে বাঁচালো ছাগশিশুকে।

এই খারজুলি গ্রামেরই বাসিন্দা শেখ ফিরোজের বাড়িতে রয়েছে কয়েকটি ছাগল। তারমধ্যে দিন সাতেক আগে একটি ছাগল সন্তান প্রসব করে। তবে ছাগলটি স্তন্যপান করানোর উপযুক্ত না হওয়ায় ছাগ শিশু টির জন্মের পর থেকেই মহা সমস্যায় পড়েন শেখ ফিরোজ। বাচ্চাটি কাছে গেলেই মেরে তাড়িয়ে দিত জন্মদাত্রী মা। দুধ না পেয়ে মরে যাওয়ার মত পরিস্থিতি হয় ছাগশিশুটির। তবে তার এই সমস্যার সমাধানে এগিয়ে আসে তাঁর প্রতিবেশী শেখ আপেল মহম্মদের ছোট ছেলে তাহসিন। দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র তাহসিন নিত‍্যদিন তাদের বাড়ির সামনে আসা একটি পথ কুকুরকে খাবার এনে দেয়। কুকুরটির নাম টাইগার রাখে সে। কয়েকদিন যাবত দেখা যাচ্ছে টাইগার আসলেই তার গায়ে হাত বুলিয়ে দিচ্ছে তাহসিন। আর সেইসময় শেখ ফিরোজের ছাগশিশুটি স্তন্যপান করছে।

ছাগশিশুটিকে স্তন্যপান করানো যেন বর্তমানে দায়িত্ব হয়ে উঠেছে তাহসিন ও সারমেয়টির। ছাগশিশুটি দুধ না পাওয়ায় কষ্ট হচ্ছিল বলে জানায় তাহসিন। তাই টাইগারের অর্থাৎ সারমেয়টির কাছে দুধ খাওয়ানোর জন্য নিয়ে গেলে সে দেখে সারমেয় টি তাকে দুধ খাওয়াচ্ছে।

সারমেয়র স্তন্যপান করে একটি ছাগশিশুর বড় হয়ে ওঠাকে ব্যতিক্রমী ঘটনা বলে জানান ভাতার রাজ্য প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রের মেডিক্যাল অফিসার ডাঃ ঊষা দে। বিষয়টির খোঁজ নিয়ে দেখবেন বলে জানান তিনি। বহাল তবিয়তে থাকা সাত দিনের ছাগশিশুটি এখন আর নিজের মায়ের ধারে কাছে ঘেঁষতে চায়না। বর্তমানে ‘টাইগার’ কেই যেন নিজের মা হিসেবে মনে করছে ছাগশিশুটি।

Related Articles

Back to top button