বিনোদন

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রী না হলে নুসরত কী এত সুবিধা পেতেন? বিস্ফোরক ভরত কল

হিন্দি ধারাবাহিক ‘রিস্তো কা মাঞ্ঝা’ ধারাবাহিকে সম্প্রতি দেখা মিলছে তাঁর। টলি নায়ক ক্রুশল আহুজা এই ধারাবাহিকের নায়কের চরিত্রে অভিনয় করছেন। তারা বাবার চরিত্রেই দেখা যাচ্ছে অভিনেতা ভরত কলকে। ধুতি, পাঞ্জাবী ও উত্তরীয় পরে বেশ দেখাচ্ছে তাঁকে। এই ধারাবাহিক হিন্দিভাষী হলেও, ধারাবাহিকের কাজ চলছে কলকাতাতেই।

সম্প্রতি এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে রাজ্যের শাসকদলের ভূয়সী প্রশংসা করতে শোনা গেল ভরত কলকে। এমনকি বর্তমানে যে টলি অভিনেত্রী সবচেয়ে বেশি চর্চা ও বিতর্কের শীর্ষে, সেই নুসরত জাহানকে নিয়েও কথা বললেন এই বর্ষীয়ান অভিনেতা।

ভরত কল সক্রিয়ভাবেই তৃণমূলের অংশ। এই নিয়ে তাঁকে কম কটাক্ষ সহ্য করতে হয়নি। অনেকেই প্রশ্ন তোলেন যে তিনি কী টিকিট পাওয়ার লোভেই তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলেন? এই প্রসঙ্গে ভরত কলের জবাব, “আমার দাদু-বাবা আজীবন কংগ্রেস করতেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কংগ্রেস থেকে সরে আসার পর ওই দলের আর কোনও ভবিষ্যৎ নেই। দিদির জন্যই আমি সক্রিয় ভাবে তৃণমূল কংগ্রেসে”।

এরই সঙ্গে যাঁরা তাঁর তৃণমূলকে সমর্থন করা নিয়ে অভিনেতার সমালোচনা করছেন তাঁদের উদ্দেশে ভরত কলের প্রশ্ন, বাম-কংগ্রেস এবং ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের জোটে তৈরি ‘সংযুক্ত মোর্চা’ কী মুখ্যমন্ত্রীর মতো কখনও উদার হতে পারত?

আরও পড়ুন- মদন মিত্র আসছেন রূপোলী পর্দায়! তৈরি হচ্ছে ‘ওহ লাভলি’র জনকের বায়োপিক! মদনদা সাজবেন কে?

আইএসএফ প্রধান আব্বাস সিদ্দিকি নুসরত জাহানকে তাঁর ভাষণে নিয়ে যে কটুক্তি করেছিলেন তা সকলেরই জানা। নির্বাচনের আগে একসময় আব্বাস সিদ্দিকিকে বলতে শোনা গিয়েছিল, “মুসলিম হয়ে ছবিতে অভিনয় করছেন। ওঁকে বেঁধে মারা উচিত”। এই প্রসঙ্গ টেনে এদিন ভরত বলেন, “২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনে মুখ্যমন্ত্রী বদল হলে নুসরত এবং তাঁর মতো বাকিরা এই স্বাধীনতা পেতেন”?

তবে নুসরতের ব্যক্তিগত প্রসঙ্গ বা নিখিলের সঙ্গে নিজের বিয়ে অবৈধ বলে ঘোষণা করা বা নিখিল কেবল তাঁর ‘সহবাস সঙ্গী’, অভিনেত্রীর এমন মন্তব্য নিয়ে ভরত কোনও কথা বলতে চান নি। তিনি জানানা এই বিষয়টি আদালতে বিচারাধীন। তাই এ নিয়ে তিনি কোনও মন্তব্য করতে চান না।

তিনি এও জানান যে নুসরত কার সঙ্গে থাকছে, বা তাঁর সন্তানের বাবা কে, এ নিয়ে আমজনতার কেন এত মাথাব্যাথা? তিনি বলেন, “নুসরত কার সঙ্গে মিশবেন, থাকবেন, কার সন্তান ধারণ করবেন, সন্তানের পিতৃপরিচয় দেবেন কি দেবেন না, সম্পূর্ণ ওঁর ব্যাপার। কেন আমি ওঁর ব্যক্তিগত বিষয়ে নাক গলাতে যাব”।

Related Articles

Back to top button