বিনোদন

বাংলা না জানা ফর্সা অভিনেত্রী কেন, কোনও শ্যামবর্ণ অভিনেত্রী কেন নয়? ঝুলন গোস্বামীর বায়োপিকে অনুষ্কাকে কাস্ট করা নিয়ে তুমুল বিতর্ক

কিছুদিন আগেই শোনা গিয়েছিল যে ঝুলন গোস্বামীর বায়োপিকে দেখা যাবে না অনুষ্কা শর্মাকে। তবে বৃহস্পতিবার সকালেই সারপ্রাইজ দিলেন বিরাট-পত্নী। তিন বছর পর ঝুলন গোস্বামীর বায়োপিক ‘চাকদহ এক্সপ্রেস’ দিয়েই অভিনয়ে কামব্যাক করছেন অনুষ্কা। এই ছবির পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন প্রসিত রায়। ছবির টিজার শেয়ার করলেন অভিনেত্রী।

চাকদহের এক সাধারণ মেয়ের অসাধারণ হয়ে উঠবার লড়াই উঠে আসবে ‘চাকদহ এক্সপ্রেস’-এ। কীভাবে প্রচলিত ধ্যান-ধারণা, প্রতিকূলতা ভেঙে পুরুষতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থায় মহিলা ক্রিকেটার হিসাবে কীভাবে জায়গা ছিনিয়ে নিয়েছেন ঝুলন তা উঠে আসবে এই ছবিতে।

২২ গজে বল হাতে ছুটে আসতে দেখা যাবে অনুষ্কাকে। এই দৃশ্য দেখার অপেক্ষা রয়েছে দর্শক। তবে টিজারে তেমন কিছুই চোখে পড়েনি। তবে ভারতীয় দলের নীল জার্সিতে ‘ঝুলন’ অনুষ্কাকে দেখে দ্বিধাবিভক্ত টুইটার।

শীঘ্রই ওটিটি প্ল্যাটফর্ম নেটফ্লিক্সে মুক্তি পাবে এই ছবি। ছবির টিজার শেয়ার করে অনুষ্কা লেখেন, “এই ছবিটা খুব স্পেশ্যাল, কারণ এটা বলবে আত্মত্যাগের গল্প। মহিলা ক্রিকেট নিয়ে মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি পালটে দিতে পারে এই ছবি। যখন ঝুলন ক্রিকেটার হওয়ার স্বপ্ন দেখেছিল, তখন মেয়েদের জন্য স্পোর্টসের দুনিয়ায় পা রাখাটাই ছিল বড় চ্যালেঞ্জ। এই ছবিতে এমন অনেক গল্প উঠে আসবে যা ঝুলনের জীবনকে, মহিলা ক্রিকেটকে একটা দিশা দেখিয়েছে”।

তিন বছর পর ফের নিজের পছন্দের অভিনেত্রীকে পর্দায় দেখে বেশ উচ্ছ্বসিত অনুষ্কার ভক্তরা। কিন্তু নেটিজেনদের একাংশ ঝুলন গোস্বামীর চরিত্রে অনুষ্কাকে একেবারেই মেনে নিতে রাজি নন।

একজন লিখেছেন, “আমি অনুষ্কাকে ভালোবাসি, তবে উনি এই চরিত্রের জন্য একদম উপযুক্ত নন”। আবার অন্য একজন লেখেন, “বায়োপিক যখন বানাচ্ছেন কম করে একটু ত্বকের রঙটা মিলিয়ে নিতেন। একজন বাঙালি অভিনেত্রীকে এই চরিত্রের জন্য বাছা উচিত ছিল”। এক নেটিজেনের প্রশ্ন, “কোনও শ্যামবর্ণা মেয়েকে কেন নেওয়া হল না এই চরিত্রের জন্য? শ্যামলা মেয়েদের নিয়ে কী সমস্যা এদের বোঝা যায় না”।

অনেকেরই দাবী বলিউডে অনেক বাঙালি অভিনেত্রী রয়েছেন বা টলিউডের কোনও অভিনেত্রীকেও ঝুলন গোস্বামীর চরিত্রে কাস্ট করা যেত। বাঙালির চরিত্রে অভিনয় করতে গেলে স্পষ্ট বাংলা বলাটা খুব জরুরি, তবে টিজারে অনুষ্কার বাংলা উচ্চারণে টান স্পষ্ট। যদিও এখনও পর্যন্ত তাঁকে বল হাতে দেখা যায়নি। এর আগেই সমালোচনা কুড়লেন তিনি। এবার নিজের অভিনয় দিয়ে সকলের মুখ বন্ধ করতে পারেন কী না বিরাট-ঘরনি, এখন সেটাই দেখার।

এদিকে

সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের পরবর্তী ছবি ‘সাবাশ মিঠু’-তে ঝুলনের ভূমিকায় দেখা যাবে অভিনেত্রী মুমতাজ সরকারকে। এই কাস্টিং নিয়ে বেশ খুশি দর্শক।

Related Articles

Back to top button