বিনোদন

টিভির পর্দা থেকে বিদায় নিচ্ছেন আমজনতার প্রাণপ্রিয় রানী মা! কেমন অনুভব করছেন দিতিপ্রিয়া? 

দীর্ঘ চার বছরের সফর সমাপ্ত হওয়ার মুখে। রানী রাসমণি ছোটবেলার চরিত্র করার জন্য ইন্দ্রপুরী স্টুডিও’র ফ্লোরে ঢুকলেও পাবলিক ডিমান্ডে বড় বয়সের চরিত্র অভিনয় করতে হয় ছোট্ট দিতিপ্রিয়াকে। ‌তবে ছোট-বড় দুই চরিত্রেই সমান সাবলীল ছিলেন তিনি।

কদিন ধরেই সিরিয়ালের লেটেস্ট প্রমো ভয় ধরাচ্ছিল দর্শকদের মনে। তবে কি রানী মা সত্যিই বিদায় নিচ্ছেন? এই ঘটনায় এবার আলোকপাত করলেন স্বয়ং রানী রাসমণি ওরফে দিতিপ্রিয়া রায়।

তিনি জানিয়েছেন, অবশেষে ৪টে বছর পার করে রানী রাসমনির চরিত্র ছাড়ছেন তিনি। সম্প্রতি সপরিবার করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন দিতিপ্রিয়া রায়। সেরে উঠেছেন মারণ ভাইরাসের হাত থেকে। তার পরে ফের ফিরেছেন করুণাময়ী রাণী রাসমণি-র শ্যুটিং সেটে। ১৫ দিন কাটিয়ে ফের শেষ দফার শুটিং করবেন রানী মা।

আরও পড়ুন- ৪৭-এর ছেলে অবিবাহিত! সমাজে দুর্নাম হচ্ছিল বলে খুন করল বাবা-মা!

তবে রাণীমার চরিত্র থেকে বেরিয়ে আসা তাঁর কাছে যে বেশ কষ্টসাধ্য তা জানিয়েছেন দিতিপ্রিয়া।এই চরিত্র শেষ হতে চলায় বেশ মন‌ও খারাপ দিতিপ্রিয়ার। কারণ রাণী রাসমণি’র সেট তার কাছে ছিল তাঁর দ্বিতীয় পরিবারের মতো।

এই বিষয়ে নিজের প্রতিক্রিয়ায় দিতিপ্রিয়া জানিয়েছেন, “রানির বয়স হয়েছে। মৃত্যু তো অনিবার্য। সে কথা জানতাম। তাও মন খারাপ তো হবেই। আমার বড় হওয়ার সঙ্গী এই ধারাবাহিক।”

রানী মা হিসেব সফর শেষের পর ফের কোন সিরিয়ালে দেখা যেতে পারে দিতিপ্রিয়াকে? সেই বিষয়ে জানাতে গিয়ে অভিনেত্রী জানিয়েছেন তাঁর কাছে ‘রানী মা’র’ ভাবমূর্তি ভেঙে বেরিয়ে আসার রাস্তা সহজ নয়। সে ভাবেই তিনিও নির্দিষ্ট চরিত্র থেকে বেরিয়ে আসার জন্য পরিশ্রম করবেন বলেও জানিয়েছেন দিতিপ্রিয়া।

আরও পড়ুন- বিমানবন্দরের লাউঞ্জে বসে শাহী লাঞ্চ করছে বাঁদর! বিশেষ এই অতিথির কাজকর্ম ভাইরাল নেট দুনিয়ায়

তবে ছোটপর্দার চেয়ে বড় পর্দাতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্য দিতিপ্রিয়া। অভিনেত্রী’র কথায়, “ধারাবাহিকে কাজ করতে চাই না, তা নয়। নিশ্চয়ই করব। তবে এখনই না। তার ৩টি কারণ, প্রথমত, বিভিন্ন চরিত্র নিয়ে নাড়াঘাটা করতে চাই। দ্বিতীয়ত, আমার বয়সের সঙ্গে যায় এমন চরিত্র চাই।”

সেই সঙ্গে তিনি আরও জানিয়েছেন তিনি পড়াশোনা করতে ইচ্ছুক। আর বড় পর্দায় কাজ করলেই একমাত্র সেই সুবিধা পাওয়া যায়। ‌ তাঁর কথায়, অভিনয় ছাড়া যদি আর কোনও পেশা তাঁকে গ্রহণ করতে হয়, তবে তা কেবল পড়াশোনা নির্ভর কোনও কাজ।

Related Articles

Back to top button