বিনোদন

রিয়্যালিটি শোয়ের প্রতিভা যদি টাকার জন্য কেউ বিক্রি করতে চান, তবে তাকে ভদ্রভাবে দরজা দেখিয়ে দেবেন জিৎ গাঙ্গুলী!

টলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় সুরকার এবং সঙ্গীত পরিচালক জিৎ গাঙ্গুলী। কিছুদিন পর থেকে তাকে দেখা যাবে বিচারকের আসনে। রাজ চক্রবর্তী পরিচালিত কালার্স বাংলায় গানের নতুন রিয়্যালিটি শো ‘সঙ্গীতের মহাযুদ্ধ’-এর অন্যতম বিচারক তিনি। তার সাথে রয়েছেন উস্তাদ রশিদ খান এবং সঞ্চালনার দায়িত্বে থাকবেন মীর আফসার আলি।

বর্তমানের রিয়ালিটি শো মধ্যেই বিতর্ক সবসময় চলতেই থাকে। এবার বিচারকের আসনে বসে জিৎ গাঙ্গুলী কি ইন্ডিয়ান আইডলের বিতর্কের বিষয় নিয়ে ভাবছেন? এই বিষয়ে জিৎ গাঙ্গুলী জানান ‘‘যা নিজের চোখে দেখিনি তা নিয়ে কিছু বলতে পারব না। তবে বিচার করতে বসে আমি প্রতিযোগীদের যেমন টিপস দেব দরকারে বকাঝকাও করব’’।

তবে এই প্রতিযোগিতায় যে সমস্ত শিল্পীরা অংশগ্রহণ করেছেন তারা একেবারেই আনকোরা নন। তারা রীতিমতো পোড়খাওয়া শিল্পী।সৌম্য চক্রবর্তী, আরফিন রানা, প্রীতম রায়, সুমন মজুমদার, শালিনী মুখোপাধ্যায়, রাহুল দত্ত, রাজদীপ মুখোপাধ্যায়, শ্রায়ী পাল, দিলাশা চৌধুরী, অহেনজিতা ঘোষ, স্বয়ম পাল, হৃতি টিকাদার, সুপ্রতীপ ভট্টাচার্য নানা প্রতিযোগিতায় জিতে ফেরা শিল্পী। এদের মধ্যে সুপ্রতীপ ইতিমধ্যেই জিৎ গাঙ্গুলীর সুর দেওয়া দেবের “চ্যাম্প” সিনেমায় গান করেছেন।

তবে প্রত্যেকেই যখন অভিজ্ঞ শিল্পী, তাই কান্নাকাটি মান-অভিমানের পালা এবার কি একেবারেই নেই? পুরোপুরি প্রফেশনাল একটি রিয়েলিটি শো হতে চলেছে সংগীতের মহাযুদ্ধ? সুরকারের দাবি করেন একেবারেই তা নয়।বরং তিনি বলেন একটি গানের রিয়েলিটি শো যেমন হয় অর্থাৎ ভালো গাইলে বাহবা দেবেন, আবার ভুল করলে তাদের বকাঝকা করে , ভুল গুলো ধরিয়ে দেবেন।

অর্থের বিনিময়ে যদি বিচারককে পছন্দ-অপছন্দ বেছে নিতে হয়, সেক্ষেত্রে কি করবেন জিৎ গাঙ্গুলী? এমন অভিযোগ জি বাংলা সারেগামাপা তে উঠেছে।

এই বিষয়ে পুরোপুরি স্পষ্টবক্তা সুরকার। তিনি জানান‘‘ইন্ডিয়ান আইডল’-এর কথা বলতে পারব না। আমি এর আগে চার বার রিয়্যালিটি শো-এর বিচারক হয়েছি। ‘সারেগামাপা’, ‘সুপার সিঙ্গার’, ‘সুপার সিঙ্গার জুনিয়র’, ‘গুরুকুল’-এ। কেউ আমায় এই ধরনের প্রস্তাব দেননি। এখানেও সেটা হবে না।’’ আর যদি এই ধরনের প্রস্তাব আসে!সাফ জবাব এল, ‘‘ভদ্র ভাবে দরজা দেখিয়ে দেব। টাকা দিয়ে সব কেনা গেলেও সঙ্গীত কেনা যায় না! নিজেকে ভবিষ্যতে প্রমাণও করা যায় না।’’

পাশাপাশি সুরকার জিৎ গাঙ্গুলির আশ্বাস দেন ‘‘লকডাউন উঠছে। হিন্দি-বাংলায় আবার ছবির কাজ শুরু হচ্ছে। আমি যে সব ছবির সুরকার, সেই ছবিগুলোয় প্রতিযোগিতায় সেরাদের কণ্ঠ শুনতে পাবেন সবাই। প্রতিযোগীদের জন্য বিচারক হিসেবে এটাই হবে আমার উপহার।’’

Related Articles

Back to top button