বিনোদন

টুইটার সরগরম! কৃষি আইন প্রসঙ্গে দিলজিৎকে ফের তোপ দাগলেন কঙ্গনা, পাল্টা কটাক্ষ দিলজিৎ-এরও

কঙ্গনা রানাওয়াত ও দিলজিৎ দোসাঞ্জের মধ্যেকার বাকযুদ্ধ যেন আর থামার নাম নেই। ক্রমশ তা বেড়েই চলেছে। গতকাল বুধবার, ফের একবার এই দুই তারকার বাক বিনিময়ে উত্তপ্ত হয়ে উঠল টুইটার। এদিন টুইট করে কঙ্গনা লেখেন কৃষকদের সপক্ষে সুর চড়িয়ে দিলজিৎ নাকি ‘গায়েব’ হয়ে গিয়েছেন।

কৃষক আন্দোলনে শুরুর থেকেই কৃষকদের পাশে থেকেছেন গায়ক দিলজিৎ দোসাঞ্জ। সেরকমই অন্যদিকে আবার কঙ্গনা রানাওয়াত কেন্দ্র সরকারের পাশে দাঁড়িয়ে কৃষক আন্দোলনকে সমর্থন করা তারকাদের তুলোধোনা করেছেন। বুধবার একাধিক টুইটে দিলজিৎকে উল্লেখ করে কঙ্গনা লেখেন, “আমি খুব সহজভাবে জানতে চাই দিলজিৎজি, কৃষি বিলের কোন বিষয়টি আপনার পছন্দ নয়। যেরকম আমার এই বিষয়টি বেশ পছন্দ হয়েছে যে এখন থেকে কৃষকেরা দেশের যে কোনও প্রান্তে নিজেদের দ্রব্য বিক্রি করতে পারবেন। ঠিক যেমন আপনি দেশের যে কোনও প্রান্ত থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। এই বিষয়টিও বেসগ প্রশংসনীয় যে এখন থেকে তারা সরাসরিই উপভোক্তাদের নিজেদের পণ্য বিক্রি করতে পারবেন। এটি একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। এই আইন আমাদের দেশের কৃষকদের দুরাবস্থাকে কাটিয়ে দেবে। তাহলে আপনি কেন এই আন্দোলনকে প্ররোচনা দিচ্ছেন। দয়া করে আমাকে বুঝিয়ে বলুন”।

কঙ্গনার এই টুইটের পাল্টা জবাব দিয়ে দিলজিৎ লেখেন, “আমার মনে করি না আমার আপনাকে কোনও জবাব দেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। স বিষয়ে নিজেকে সর্বেসর্বা ভাবা বন্ধ করুন। মনে হচ্ছে, আপনি আমাকে নিয়ে অবসেশনে ভুগছেন। একটু সময় নিয়ে এটা শুনুন”। লেখার নীচে দিলজিৎ একটি সংবাদের লিঙ্ক শেয়ার করেছেন।

আবার, কঙ্গনার অন্য একটি মন্তব্য যে কৃষকদের উত্যক্ত করে দিলজিৎ গায়েব হয়ে গিয়েছেন, এই মন্তব্যেরও জোরদার কটাক্ষ করেন দিলজিৎ। তিনি বলেন, “ভুলেও ভাববেন না যে আমি গায়েব হয়ে গিয়েছি। ওঁকে কে অধিকার দিয়েছে এটা ঠিক করার যে কে দেশপ্রেমী ও কে দেশদ্রোহী? ওঁকে কে সর্বময়কর্তার উপাধি দিল? কৃষকদের পাশে দেশ-বিরোধী তকমা দেওয়ার আগে একটু লজ্জা থাকা উচিত”।

গত মাসের শেষ থেকেই শুরু হয়েছে এই দুই তারকার মধ্যে বাকযুদ্ধ। কৃষকদের দেশ বিরোধী বলার পর থেকেই কঙ্গনাকে টুইটে দাগেন দিলজিৎ দোসাঞ্জ। ছেড়ে কথা বলেননি কঙ্গনাও। তিনিও একের পর টুইট করতে থাকেন দিলজিৎকে উদ্দেশ্য করে। তাঁকে করণ জোহরের ‘পোষ্য’ বলতেও পিছপা হননি কঙ্গনা। তাদের এই টুইট যুদ্ধের আদৌ কবে সমাপ্তি ঘটবে, তা সময়ই বলবে।

Related Articles

Back to top button