সব খবর সবার আগে।

সুশান্তের মৃত্যু : স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর জরুরি বৈঠক, হস্তক্ষেপ করতে চলেছে সিবিআই?

আজ বিকাল পাঁচটায় সুশান্ত সিং রাজপুত এর অস্বাভাবিক মৃত্যু মামলা নিয়ে জরুরি বৈঠক ডেকেছেন মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখ, বিশ্বস্ত সূত্র মারফত জানা গেল এমনটাই। বস্তুত গতকাল সুশান্ত সিং রাজপুতের বাবা কে কে সিং দ্বারা রিয়া চক্রবর্তী ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে দায়ের করা এফআইআরের কপি প্রকাশ্যে চলে আসতেই হইচই পড়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেখানে রিয়া ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে সুশান্ত কে আর্থিক, মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনের মতো বেশ কিছু গুরুতর অভিযোগ করা হয়েছে। তার পরের দিন অর্থাৎ আজকে এই বৈঠক মহারাষ্ট্র সরকারের তরফ থেকে যখন রাখা হয়েছে তখন ঘটনাপ্রবাহ সম্ভবত সিবিআই তদন্তের দিকেই ঘুরছে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

সুশান্ত সিং রাজপুত এর বাবা পাটনার রাজেন্দ্র নগর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। বিহার পুলিশের চার সদস্যের একটি দল ইতিমধ্যেই মুম্বইয়ে রওনা দিয়েছে এবং তারা সেখানে কাজও শুরু করে দিয়েছে বলে সূত্র মারফত জানা গিয়েছে। এদিকে রিয়া চক্রবর্তী ও তার পরিবার আইনজীবীর দ্বারস্থ হয়েছেন।‌ সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে যে রিয়া অন্তর্বর্তীকালীন জামিনের আবেদন করেছেন।

এছাড়াও জানা যাচ্ছে যে এই বৈঠক মুম্বই পুলিশের উচ্চ পদস্থ পুলিশ অফিসার ও সুশান্তের কেসের দায়িত্বে থাকা অভিষেক ত্রিমুখেকে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে। উল্লেখ্য সুশান্তের মৃত্যুকে অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা হিসাবেই তদন্ত করছে বা বর্তমানে করতে বাধ্য হয়েছে মুম্বই পুলিশ। অন্যদিকে সুশান্ত সিং রাজপুত এর মৃত্যু তদন্তের জন্য প্রথম কোন এফআইআর দায়ের করা হয় বিহার পুলিশের কাছে তাও সুশান্তের পরিবারের তরফ থেকে। তাই আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে মুম্বই ও বিহার পুলিশ যখন এই একই মামলায় জড়িয়ে গিয়েছে তাই এখানে সিবিআই হস্তক্ষেপ হতে বেশি দেরি নেই। তাই অবশেষে সিবিআইয়ের হাতেই এই মামলা তুলে দিতে পারে মহারাষ্ট্র সরকার,বলে মনে করা হচ্ছে।

যদিও মুম্বই পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ তারা এফআইআর দায়ের করতেই রাজি হয়নি।তারা বেশ কিছু বড় প্রযোজক সংস্থার নাম জোর করে জড়ানোর চেষ্টা করছিল এবং মামলাটি অন্যদিকে ঘুরে যাচ্ছিল। আর মুম্বই পুলিশ প্রথম থেকে দাবি করেছিল গোটা ঘটনাটি আত্মহত্যা ছাড়া অন্য কিছু নয়। গোটা ঘটনার বেশ কিছু ভিডিও এবং ছবি যখন প্রকাশ্যে চলে আসে যেখান থেকে খালি চোখে স্পষ্ট যে এটা সাধারণ আত্মহত্যার ঘটনা নয় সেখানে মুম্বই পুলিশ কি করে বলছে যে ময়নাতদন্ত ও ভিসেরা রিপোর্টে অস্বাভাবিক মৃত্যুর কোন চিহ্ন পাওয়া যায়নি, প্রশ্ন তুলছেন সুশান্তর অনুরাগীরাই।

যদিও মুম্বই পুলিশ নিজেদের সাফাই গেয়েছে এই বলে যে, সুশান্তের মৃত্যুর পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অভিনেতার পরিবারের তরফে কারুর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানো হয়নি কিংবা রিয়া চক্রবর্তীর নাম নেওয়া হয়নি।

অন্যদিকে কে কে সিং অর্থাৎ সুশান্ত সিং রাজপুতের বাবার আইনজীবী বিকাশ সিং জানাচ্ছেন যে, “মুম্বই পুলিশ এফআইআর দায়ের করছিল না। পাশাপাশি রিয়ার নাম না করলেও সুশান্তের শেষ সময়ে যাঁরা আশেপাশে ছিল তাঁদের জোর দিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের কথা জানিয়েছিল পরিবার।”

জানা গিয়েছে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার এই তদন্তে পূর্ণ স্বাধীনতা দিয়েছেন পাটনা পুলিশকে। অর্থাৎ এখন সুশান্তের অস্বাভাবিক মৃত্যু মামলার তদন্ত অনেকটাই গতি পেল বলে মনে করছেন সুশান্তের অনুরাগীরা এবং তারা আশা করছেন যে প্রকৃত সত্যিটা হয়তো অনেক তাড়াতাড়িই সামনে চলে আসবে।

You might also like
Leave a Comment