সব খবর সবার আগে।

পেশায় ঝাড়ুদার এবার ইন্ডিয়ান আইডলের মঞ্চে, গান শুনে আবেগে ভাসলেন বিচারকেরা

ফের নতুন সিজন নিয়ে ফিরছে জনপ্রিয় গানের রিয়্যালিটি শো ইন্ডিয়ান আইডল। ইতিমধ্যেই এই শো নিয়ে রীতিমতো চর্চা শুরু হয়ে গেছে। বেশ জল্পনা দানা বেঁধেছে এই শো নিয়ে। প্রত্যেক বছরের মতো এই বছরও বিচারকের আসনে দেখা যাবে সদ্য বিবাহিতা নেহা কক্করকে। এই বছর বিচারকের আসনে থাকবেন বিশাল দাদলানি ও হিমেশ রেশমিয়াও। নতুন প্রোমো মুক্তু পেতেই তা নিয়ে শোরগোল পড়েছে চারিদিকে। প্রোমোতে দেখা গেছে এক প্রতিযোগীর জীবনযুদ্ধের কাহিনী শুনে নিজেদের চোখের জল ধরে রাখতে পারলেন না হিমেশ রেশমিয়া ও নেহা কক্কর। কিন্তু কে এই প্রতিযোগী?

প্রতিযোগীর নাম যুবরাজ মেধ। ইন্ডিয়ান আইডলের মঞ্চ তার কাছে নতুন কিছু নয়। তিনি এর আগে বহুবার এই মঞ্চে উঠেছেন। কিন্তু সেই সময় কোনও স্পটলাইটেই ধরা পড়েন নি তিনি। যুবরাজ এই ইন্ডিয়ান আইডল সেটেরই ঝাড়ুদার। দীর্ঘদিন এই সেটে ঝাড়ুদারের কাজ করছেন তিনি। এটা তার পেশা হলেও তার ধ্যান জ্ঞান শুধুই গান। তাই এই বছর মনে সাহস সঞ্চয় করে ইন্ডিয়ান আইডলের প্রতিযোগীদের তালিকায় নাম লেখান যুবরাজ।

অডিশন দিতে এসে যুবরাজ জানান, প্রতিযোগীদের আরও ভালো গান করতে যেসব টিপস বিচারকেরা দিয়ে থাকেন, সেসব কথা মাথায় রেখেই তিনি নিয়মিত সঙ্গীতচর্চা করে গেছেন। এভাবেই নিজের গানের গলাকে আরও ক্ষুরাধার বানানোর চেষ্টা করেছেন তিনি। তার এই জীবনকাহিনী শুনে কথা জড়িয়ে আসে বিচারকদের। যুবরাজের জীবনযুদ্ধের কাহিনী শুনে চোখে জল আসে নেহা কক্কর ও হিমেশ রেশমিয়ার।

তার কথা শুনে হিমেশ বলেন, “তুমি এই হিন্দুস্তানের জন্য একটা আশার আলো। যে কোনও মানুষ সব জায়গা থেকেই শিখতে পারে সেটা তুমি প্রমাণ করেছো। শুধু পরিশ্রম করে যেতে হবে”। এদিন যুবরাজের গান শুনে উঠে দাঁড়িয়ে করতালিও বাজান বিচারকেরা। সে যে অনেক মানুষেরই অনুপ্রেরণা হতে পারে, এ কথাও তাকে বারবার বলেন সব বিচারক।

২৮ নভেম্বর, অর্থাৎ শনিবার থেকে শুরু হচ্ছে ইন্ডিয়ান আইডলের ১২ নম্বর সিজন। অন্যান্য সিজনের মতো এই সিজনেও সঞ্চালকের ভূমিকাতে দেখা যাবে আদিত্য নারায়ণকে। খুব শীঘ্রই বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চলেছেন তিনি। এর আগে নেহা কক্করের সঙ্গে তার বিয়ের খবর রটে। কিন্তু পরে দুজনেই স্বীকার করেন যে তারা নিজেদের মিউজিক অ্যালবামের জন্য মিথ্যে এই খবর রটান। তবে এবার সত্যিই বিয়ে করতে চলেছেন তিনি।

You might also like
Comments
Loading...