সব খবর সবার আগে।

‘আমি মৃত, আমি তোমাদের কান্না মুছিয়ে দেব’, কাদের উদ্দেশ্যে বললেন সিদ্ধার্থ শুক্লা? প্যারানরমাল বিশেষজ্ঞ স্টিভ হাফের সঙ্গে কথা বলল অভিনেতার আত্মা! জানাল অনেক চমকে যাওয়ার মত কথা

সুশান্ত সিং রাজপুতের পর এবার সিদ্ধার্থ শুক্লার আত্মার সঙ্গে কথা বললেন প্যারানরমাল বিশেষজ্ঞ স্টিভ হাফ। এমনটাই দাবি করছেন তিনি। গতবছর সুশান্ত সিং রাজপুতের অস্বাভাবিক মৃত্যুর পর তিনি জানিয়েছিলেন, কথা বলেছেন সুশান্তের আত্মার সঙ্গে। এবার জানালেন সদ্য প্রয়াত অভিনেতা সিদ্ধার্থ শুক্লার আত্মার সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। মৃত্যুর পর তিনি কোথায় আছেন, কেমন আছেন, কি তাঁর বার্তা? সেই বিষয়ে সমস্ত কিছু জিজ্ঞাসা করেছেন স্টিভ।

গত ২ সেপ্টেম্বর হঠাৎই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন সিদ্ধার্থ শুক্লা। মাত্র ৪০ বছর বয়সে তাঁর চলে যাওয়া মেনে নিতে পারেননি কেউই। এরইমধ্যে আরিজোনার প্যারানরমাল বিশেষজ্ঞ স্টিভ হাফ জানালেন, তাঁর বিশেষ যন্ত্রের সাহায্যে তিনদিন ধরে তিনি সিদ্ধার্থ শুক্লার আত্মার সঙ্গে কথা বলেছেন। প্রসঙ্গত এটি একটি ‘স্পিকিং সেশন’। এই ভিডিও রেকর্ড করে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে সেটি আপলোড করেছেন স্টিভ।

ইউটিউবে যে ভিডিও ছেড়েছেন তাতে দেখা গিয়েছে, সিদ্ধার্থের আত্মার সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করছেন বিশেষজ্ঞ। তাঁকে জিজ্ঞাসা করেন, ‘আপনি এখন কোথায় আছেন? উত্তর আসে, আমি হাফ-এর কাছে আছি। আমার কুকুরকে পাওয়া দরকার।’ সিদ্ধার্থের মৃত্যুতে শোকাহত তাঁর পরিবার-সহ, আত্মীয়স্বজন এবং বন্ধু-বান্ধবেরা। অল্প বয়সী ছেলেকে হারিয়ে একা হয়ে গিয়েছেন তাঁর মা। সেই প্রসঙ্গে সিদ্ধার্থের আত্মা, তাঁর মাকে কোনোরকম বার্তা দিতে চায় কিনা! জিজ্ঞেস করায়, উত্তর আসে “আমি মৃত”।

সেই ভিডিওতে দেখা যায়, সিদ্ধার্থের আত্মা প্রিয়জনদের উদ্দেশ্যে বার্তা দেয়, “আমি তোমাদের কান্না মুছিয়ে দেবো”। এই ভিডিও দেখে হতবাক হয়েছেন সিদ্ধার্থ শুক্লার অনুরাগীরা। বিগ বসের বিজেতা হওয়ার পর থেকে তাঁর জনপ্রিয়তা আরও দ্বিগুন হয়ে গিয়েছিল। সিরিয়াল-সিনেমা তে কাজ করার পাশাপাশি, কাজ করেছেন মিউজিক ভিডিও এবং ওয়েব সিরিজেও।

তাঁর এইভাবে চলে যাওয়া কারোর পক্ষে মেনে নেওয়া সম্ভব হয়নি। জানা গিয়েছে তাঁরাই সিদ্ধার্থের আত্মার সঙ্গে স্টিভকে কথা বলার অনুরোধ জানিয়েছিলেন। তাঁদের অনুরোধ রেখে এই পদক্ষেপ নেন বিশেষজ্ঞ। তবে তাঁর এই ভিডিও মুহূর্তের মধ্যে সাড়া ফেলে দিয়েছে নেটপাড়ায়।

You might also like
Comments
Loading...