সব খবর সবার আগে।

মা উড়ালপুলের উপর গাড়ি থামিয়ে নাচের জেরে বিতর্ক, চালকের অভিযোগ মিথ্যে, দাবী স্যান্ডির, তবুও সাহায্যের আশ্বাস

নানান ঘটনা নিয়ে তা বিনোদন রূপে পরিবেশন করায় স্যান্ডি সাহার জুড়ি মেলা ভার। গত কয়েক বছরের মধ্যেই বেশ জনপ্রিয় হয়েছেন তিনি। আর বিতর্কেও জড়িয়েছেন বহুবার। সম্প্রতি মা উড়ালপুলের উপর নাইটি পরে নেচে বেশ ভাইরাল হন স্যান্ডি। কিন্তু উড়ালপুলে গাড়ি থামিয়ে নাচের বিষয়টি লালবাজারের চোখে পড়তেই ঘটল বিপত্তি।

জানা গিয়েছে, উড়ালপুলের উপর গাড়ি থামানোর জন্য চালক ও গাড়ির মালিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে তিলজলা ট্র্যাফিক গার্ড। এবার শোনা যাচ্ছে, হয়ত স্যান্ডি সাহার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে। গাড়ির চালক জানিয়েছেন যে তিনি স্যান্ডিকে গাড়ি থেকে নামতে বারণ করেছিলেন। কিন্তু স্যান্ডি তাঁর কথা শোনেন নি। এদিকে, গাড়ির চালকের এই সমস্ত অভিযোগকে মিথ্যে বলে দাবী করেছেন স্যান্ডি।

এই বিষয়ে সংবাদমাধ্যমে স্যান্ডি জানান যে উড়ালপুলের উপরে গাড়ি থেকে নামা যায় না বা সেখানে নাচা যায় না, তা তিনি জানতেন না। তিনি সতর্কতা বজায় রেখেই রাস্তা পারাপার করেছিলেন। তবে পুরোটাই তিনি করেছেন না জেনে। তিনি বলেন যে তিনি যদি কোনও ট্র্যাফিক নিয়ম ভেঙে থাকেন, তার জন্য যা করণীয়, তিনি তাই-ই করবেন।

আরও পড়ুন- ভুল প্রশ্ন করেছেন অমিতাভ, ‘কেবিসি’ বিতর্ক নিয়ে সরব শো-য়ের প্রযোজক, শোরগোল নেট দুনিয়ায়

চালকের কথার পরিপ্রেক্ষিতে স্যান্ডির উত্তর, তিনি ট্রাফিক নিয়ম জানেন না আর ড্রাইভিংও করেন না। এই কারণে স্বাভাবিকভাবেই নিষেধাজ্ঞার কথা জানা নেই তাঁর। চালকের বারণ সত্ত্বেও গাড়ি থেকে নামা, নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও নাকি অনুমতি রয়েছে বলে নেমে যাওয়া, পুলিশ এলে চালককে নাটক করতে বলা, এসব পুরোটাই চালকের মিথ্যে অভিযোগ বলে উড়িয়ে দিয়েছেন স্যান্ডি।

তাঁর কথায়, নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি যদি চালক জেনে থাকতেন, তাহলে তাঁকে বলা উচিত ছিল। তিনি এও বলেন যে চালক তাঁকে নিষেধ করেছিলেন, এটা সম্পূর্ণ ভুল। বরং চালক নাকি তাঁকে বলেছিলেন যে ভিডিওটি তাঁর ভালো লেগেছে।

তবে স্যান্ডি জানান যে চালক গরীব মানুষ। কেসের জন্য যদি আর্থিক সাহায্য লাগে তাহলে তিনি তা দিতে রাজী। তাঁর জন্য কারোর কোনও ক্ষতি হোক বা চালকের লাইসেন্স বাতিল হোক, তা তিনি একেবারেই চান না। তবে চালককে সত্যি কথাটা মেনে নেওয়ার জন্যও বলেছেন স্যান্ডি।

তিই এও জানান যে তিনি পুলিশের কাছে আবেদন করবেন যাতে চালকের লাইসেন্স বাতিল না করা হয়। আর এমন একটি কাণ্ড ঘটানোর জন্য শহরবাসীর কাছেও ক্ষমা চেয়েছেন স্যান্ডি। তাঁর কথায়, এমন কাজ ভবিষ্যতে যেন অন্য কেউ আর কখনও না করে।

You might also like
Comments
Loading...