বিনোদন

ট্রেন্ডে তো গা ভাসাতেই হবে! ‘1176 হরে কৃষ্ণ’ চর্চার মধ্যেই কৃষ্ণ সেজে সোশ্যাল মিডিয়ায় হাজির স্যান্ডি সাহা

স্যান্ডি সাহা যে ট্রেন্ডে থাকতে ভালোবাসেন, তা কার না জানা। এর জেরে নানান সময় নানান বিতর্কের সম্মুখীনও হন তিনি। কিন্তু তাতে থোড়াই তাঁর কিছু এসে যায়। তিনি তো ট্রেন্ড মেনে নানান সময় নানান পোশাকের বাহার নিয়ে হাজির হন সোশ্যাল মিডিয়ায়।

সম্প্রতি ফেসবুকে চোখ রাখলেই একটি পোস্ট বেশ চোখে পড়ছে। দেখা যাচ্ছে অনেকেই ‘১১৭৬ হরে কৃষ্ণ’ লিখে নিজের ফেসবুক ওয়ালে শেয়ার করছেন। গত দু’দিনে এরকম পোস্টে ছেয়ে গিয়েছে ফেসবুক। এবার সেই ট্রেন্ড ফলো করেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবি দিলেন স্যান্ডিও।

ফেসবুকে বেশ কয়েকটি ছবি শেয়ার করেছেন স্যান্ডি। তাতে দেখা যাচ্ছে তিনি কৃষ্ণ সেজেছেন। আর তাঁর হাতে একটি কাগজে লেখা ‘১১৭৬ হরে কৃষ্ণ’। কখনও আবার সেই কাগজকেই গোল করে মুড়ে বাঁশি বানিয়েছেন তিনি।

তাঁর ছবি শেয়ার করার সঙ্গে সঙ্গেই বেশ ভাইরাল হয়েছে। তাঁর এই সাজের অনেকে যেমন প্রশংসা করেছেন, তেমনই আবার অনেকেই তাঁর উপর ক্ষোভ বর্ষণ করেছেন। নেটিজেনদের একাংশের মতে, স্যান্ডি এভাবে কৃষ্ণ সেজে মজা করে ছবি দিয়েন আসলে হিন্দু ভগবানের অপমান করেছেন। নানান কটাক্ষের মুখে পড়তে হয়েছে ইউটিউবারকে।

সেই কটাক্ষের জবাব দিয়েছেন আবার স্যান্ডি নিজেই। এই পোস্টেরই কমেন্ট বক্সে স্যান্ডি লেখেন, “আমি এই ছবি গুলো নিয়ে খিল্লি করিনি। অনেকেই সিরিয়াল এবং সিনেমাতে ভগবানের সাজেন আমিও তাই সেজেছি। তাও কারো খারাপ লাগলে দুঃখিত আমি। কারো আবেগকে আমি আঘাত দিতে চাইনি আর হ্যাঁ একটি ভিডিও আসছে এই বিষয়ে। ওটা দেখলে কারো মনে কোন প্রশ্ন থাকবে না”।

কিন্তু এই ‘১১৭৬ হরে কৃষ্ণ’ আসলে কী? এর অর্থই বা কী? অনেকের মতে, এটি একটি উইশ ফুলফিলিং নম্বর। হরে কৃষ্ণ জপ করার আগে ১১৭৬ নম্বরটি উচ্চারণ করলে নাকি মনের ইচ্ছা পূর্ণ হয়। আবার অনেকের মতে, হরে কৃষ্ণ মহামন্ত্র ১১৭৬ শব্দের একটি মন্ত্র। এর বর্ণনা রয়েছে রঘুনন্দন ভট্টাচার্য রচিত কবি-সন্তরণ উপনিষদে। গীতাতে উল্লেখ রয়েছে, কেউ যদি হরে কৃষ্ণ বা রাধা কৃষ্ণের নামের আগে ১১৭৬ পাঠ করে তাহলে সেই ব্যক্তি নাকি সিদ্ধিলাভ করতে পারবেন ও তাঁর মনের ইচ্ছা পূর্ণ হবে।

Related Articles

Back to top button