সব খবর সবার আগে।

মি টু-এর কবলে ‘টুম্পা সোনা’-এর অভিনেতা, দীপাংশুর বিরুদ্ধে শারীরিক হেনস্থা অভিযোগ আনলেন তাঁর স্ত্রী-সহ প্রাক্তন বান্ধবী

দীপাংশু আচার্য বর্তমানকালের বেশ পরিচিত মুখ। কিচ্ছু চাইনি আমি থেকে টুম্পা সোনা বা পুটকিভাই, তার গান বা র‍্যাপে বেশ মজে থাকেন দর্শক। একাধারে তিনি কবি, অভিনেতা, ও কৌতুকশিল্পী। যখনই তার কেরিয়ার গ্রাফ আস্তে আস্তে উঠতে শুরু করেছে, ঠিক সে সময়ই হোঁচট খেলেন দীপাংশু। অতীত ফের ফিরে এসে বর্তমানকে একেবারে উলটপালট করে দিল। ‘মি টু’-এর কবলে পড়লেন দীপাংশু।

সম্প্রতি, সোশ্যাল মিডিয়াতে একের পর পোস্ট ভাইরাল হয় দীপাংশুর বিরুদ্ধে। সকলেরই মি তু-এর অভিযোগ দীপাংশুর বিরুদ্ধে। অভিনেতা ও গীতিকারের বিরুদ্ধে মারধোর ও অত্যাচারের অভিযোগ এনে সোশ্যাল মিডিয়াতে সরব হন তার প্রাক্তন বান্ধবী শ্রেয়সী চৌধুরী। সোশ্যাল মিডিয়াতে শ্রেয়সী দাবী করেছেন যে তার সঙ্গে সম্পর্কে থাকাকালীন তাঁকে মারধোর করতেন দীপাংশু। শ্রেয়সীর কথায়, তাদের সম্পর্ক শুরু হয় ২০০৮ সালে। সম্পর্কের প্রথম এক বছর  সব ভালোই ছিল। এরপর ২০০৯ সাল থেকেই তাঁর উপর শারীরিক নির্যাতন শুরু করেন দীপাংশু। বন্ধুদের সামনেও তাঁর গায়ে হাত তুলতেন দীপাংশু, এমনটাই অভিযোগ শ্রেয়সীর। দীপাংশুর এই অত্যাচার থেকে বেরিয়ে আসতে চান তিনি। কিন্তু শ্রেয়সীর দাবী, একথা জানার পর আত্মহত্যার হুমকিও নাকি দিতেন দীপাংশু।

তবে সবথেকে বড় ঘটনা যা শ্রেয়সী শেয়ার করেন, তা হল, উৎপীড়নের সময় তাঁর যোনিতে লাথি পর্যন্ত মারেন দীপাংশু। তাঁর বাড়িতে এসে অভব্য ব্যবহার করতেন তিনি, একবার তাঁর পায়ের আঙুলের উপর দিয়ে দরজাও চালিয়ে দেন দীপাংশু, এমন অভিযোগই এনেছেন শ্রেয়সী।

শ্রেয়সী জানান, এরপর দীপাংশুর হাত থেকে বাঁচতে তিনি বেঙ্গালুরু চলে যান। সেখানে গিয়ে দীপাংশুর হাত থেকে মুক্তি পান তিনি। শ্রেয়সীর এই অভিযোগ ফেসবুকে পোস্ট হতেই ভাইরাল হয়ে যায়।

শুধু শ্রেয়সীই নয়, দীপাংশু স্ত্রী শ্রীতমা ভট্টাচার্যও অভিযোগ আনেন তাঁর বিরুদ্ধে। শ্রীতমার কথায়, বিয়ের পর থেকেই নাকি দীপাংশু শারীরিক ও মানসিকভাবে অত্যাচার করেন তাঁর উপর। দীপাংশুর বিরুদ্ধে যখন একের পর এক অভিযোগ উঠতে শুরু করে, এই অবস্থায় সোশ্যাল মিডিয়ার পাশাপাশি টলিউডেও শুরু হয় তোলপাড়। দীপাংশুর বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে পোস্ট করেছেন একাধিক মানুষ।

তাঁর দিকে যখন একের পর এক অভিযোগ উঠে আসতে থাকে, তখন সোশ্যাল মিডিয়াতেই একটি পোস্ট করে দীপাংশু জানান যে, তাঁর ভয়ের কিছু নেই, কারণ তাঁর হারাবার কিছু নেই। তাই তিনি পালিয়েও যাবেন না।

You might also like
Comments
Loading...