সব খবর সবার আগে।

অতিমারীর আবহে কতটা যুক্তিসঙ্গত শারীরিক মিলন? মাথায় রাখুন কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়

করোনার প্রথম ঢেউয়ের থেকে দ্বিতীয় ঢেউ আর‌ও ভয়ঙ্কর হিসেবে এসেছে ভারতবর্ষে। একাধিক রাজ্যে চলছে লকডাউন। মৃত্যু মিছিল ভয় ধরাচ্ছে মানুষের মনে। মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রাটা যেন‌ও সেই কবে থেকেই থমকে রয়েছে। সব সময় মৃত্যু ভয়।

শারীরিক সম্পর্ক এই পরিস্থিতি থেকে কিছুটা হলেও মুক্তি দেয়। কিন্তু বর্তমানে যেখানে একে অপরের থেকে দূরত্ব বজায় রাখাই শ্রেয় সেখানে যৌন সম্পর্ক স্থাপন ঠিক কতটা সুরক্ষার তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই পারে।

লেসিওর সায়েন্সেস জার্নালে প্রকাশিত একটি রিপোর্ট বলছে, আগের থেকে বর্তমানে সেক্সের ফ্রিকোয়েন্সি অনেক কমেছে। বর্তমানে শারীরিক ঘনিষ্ঠতা চিন্তার কারণ হলেও, এর উপকারিতা কিন্তু কমে যায়নি।‌ সেক্স একটি অসাধারণ ওয়ার্কআউট এবং শরীর এবং মন দুটোকেই স্বস্তি দেয়। এর ফলে দূর হয় মানুষের মনের দুশ্চিন্তা ও অ্যাংজাইটিও।‌ভালো ঘুমে সাহায্য করার পাশাপাশি, মস্তিষ্ক থেকে এন্ডোরফিন ও অক্সিটোসিনের ক্ষরণ বৃদ্ধি করে।

সমীক্ষায় প্রকাশিত যে, ১০-২০ সেকেন্ডের আলিঙ্গন ও চুম্বন মস্তিষ্ক থেকে এই ফিল-গুড কেমিক্যালের মুক্তি ঘটাতে সাহায্য করে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন এই কঠিন সময়ে শারীরিক ঘনিষ্ঠতা মুড বুস্টারের কাজ করতে পারে।

এক নজরে দেখে নিন অতিমারীতে কী ভাবে নিরাপদে শারীরিক ঘনিষ্ঠতা বজায় রাখা যায়-

সেক্সের আগে অবশ্যই সম্মতি নিন নিজের সঙ্গীর। মহামারীর আগেও এর প্রয়োজনীয়তা ছিল, কিন্তু বর্তমানে এই সম্মতি গ্রহণ আগের চেয়েও অনেক বেশি জরুরি। কারণ বর্তমান অবস্থাকে মাথায় রেখে স্পর্শ বা ঘনিষ্ঠতা সম্পর্কে প্রত্যেকেই এখন অধিক সচেতন। তাই সঙ্গীর স্বচ্ছন্দবোধকে গুরুত্ব দিন। সরাসরি যৌন সম্পর্ক স্থাপনের পূর্বে, সঙ্গীর সঙ্গে কথা বলুন।

নিজের মধ্যে করোনার সামান্যতম লক্ষন দেখা দিলে নিজের সঙ্গীকে তা জানাতে ভুলবেন না। করোনা সংক্রমিত ব্যক্তির সঙ্গে যৌন সম্পর্ক লিপ্ত হওয়ার ফলে করোনা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনাও বেশি থাকে। তাই কারও সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের আগে, সততার সঙ্গে স্পষ্ট ভাবে সমস্ত বিষয় আলোচনা করে নিন।

বর্তমান মহামারী পরিস্থিতিকে মাথায় রেখে প্রযুক্তিকে কাজে লাগান। করোনার জেরে লকডাউন বা অন্য কোনও কারণে নিজের সঙ্গী থেকে দূরে থাকতে বাধ্য হচ্ছেন অনেকে। কিন্তু সেক্সের ইচ্ছাও রয়েছে। সে ক্ষেত্রে সেক্সটিং বা ভিডিও ডেটসের মাধ্যমে ঘনিষ্ঠ হওয়ার বিষয়টি চিন্তাভাবনা করে দেখেছেন কী? ঘনিষ্ঠতা বজায় রাখার জন্য এই উপায় অনেকের ক্ষেত্রেই কার্যকরী প্রমাণিত হয়েছে। তবে নিজের ছবি বা নিউড ফটো শেয়ার করার ক্ষেত্রে ঝুঁকি রয়েছে, এটা মাথায় রাখবেন। এমন কোনও সমস্যায় পড়লে সাইবার ক্রাইম ডিপার্টমেন্টে অভিযোগ জানাতে দেরি করবেন না।

You might also like
Comments
Loading...