সব খবর সবার আগে।

যারা নিয়মিত যোগাসন করেন তাদের করোনা আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কম, দাবি আয়ুষ মন্ত্রী শ্রীপদ নায়েকের

আমাদের জীবন ও স্বাস্থ্যকে সুস্থ ও স্বাভাবিক রাখতে যোগা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এটি আমাদের অনাক্ৰম্যতা বাড়াতে এবং মনঃসংযোগে সাহায্য করে। তাই নিয়মিত যোগাভ্যাস করা আমাদের একান্ত প্রয়োজন। আজ আন্তর্জাতিক যোগ দিবসে আয়ুষ মন্ত্রী শ্রীপদ নায়েক দাবি করেন যাঁরা নিয়মিত যোগাসন করেন, তাঁদের ক্ষেত্রে করোনা সংক্রামিত হওয়ার আশঙ্কা কম থাকে। একটি সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ‘আমি নিশ্চিত, নরেন্দ্র মোদির মেয়াদকালে যেভাবে দেশ ও বিশ্বে যোগাসনের সুঅভ্যাস ছড়িয়ে পড়েছে, তা করোনা মোকাবিলায় অনেকাংশেই সাহায্য করবে। যাঁদের যোগাসনের অভ্যাস রয়েছে, তাঁদের করোনা সংক্রামিত হওয়ার আশঙ্কা কম।’

আজ সকালে গোয়ার পানাজির কাছে নিজের গ্রামের বাড়িতে যোগাসন করেন আয়ুষ মন্ত্রী। এরপর তিনি বলেন, ‘আজ লেহতে আন্তর্জাতিক যোগ দিবস উপলক্ষ্যে একটি অনুষ্ঠান আয়োজিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বর্তমান করোনা সংকটের মধ্যে সেই অনুষ্ঠান করা সম্ভব হয়নি। তাই সবাইকে বাড়িতে থেকেই সামাজিক দূরত্ববিধি মেনে যোগাসন করার পরামর্শ দেওয়া হয়। সেই পরামর্শে আমরা দারুণ প্রতিক্রিয়া পেয়েছি। আজ সবাই বাড়িতে থেকেই যোগাসন করেছেন। যোগাসন করলে আমাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় এবং শ্বাসতন্ত্রেরও উন্নতি হয়।’

গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী প্রমোদ সাবন্ত উত্তর গোয়া জেলায় নিজের বিধানসভা কেন্দ্রের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে যোগাসন সম্বন্ধে বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, ‘যোগাসনের সাহায্যে আমরা আমাদের পারিপার্শ্বিক কোনও কিছুকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো না। তবে নিয়মিত যোগাভ্যাস একজন ব্যক্তির শরীরে অনেক পরিবর্তন আনে। তাঁর জীবনযাত্রা, দৃষ্টিভঙ্গী সব কিছুকেই প্রভাবিত করে। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি জীবনের প্রতিটি ঘটনায় ইতিবাচক দিক খুঁজে পান। তাই সবারই সুস্থ জীবনযাপনের জন্য যোগাসনের পথ বেছে নেওয়া উচিত।’

গোয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী বিশ্বজিৎ রানে জানিয়েছেন, ‘এ বছরের যোগ দিবসের উদ্দেশ্য হল, বাড়িতে থেকে যোগাসনের মাধ্যমে স্বাস্থ্যকর অভ্যাস গড়ে তোলা। এবারের আন্তর্জাতিক যোগ দিবসে সবার শপথ নেওয়া দরকার, আজ থেকে প্রতিদিন অন্তত এক ঘণ্টা যোগাসন করবেন এবং যোগাসনের অভ্যাস গড়ে তুলবেন।’

You might also like
Leave a Comment