বাংলাদেশ

হিংসা অব্যাহত বাংলাদেশে, রংপুরের জেলেপল্লীতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হল হিন্দুদের বাড়িতে

এক হিন্দু তরুণের ফেসবুকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে রংপুরের পীরগঞ্জের মাঝিপাড়া জেলেপোল্লিতে প্রায় ২৯টি সংখ্যালঘুদের বাড়িতে আগুন ধরিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। গতকাল, রবিবার প্রায় সাত ঘণ্টা চেষ্টা চালানোর পর এই আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়েছে বলে জানা যায়।

রংপুরের সহকারী পুলিশ সুপার মো. কামরুজ্জান্ন জানান যে এক হিন্দু তরুণ ফেসবুকে ধর্মীয় অবমাননাকর পোস্ট করেছেন বলে অভিযোগ তুলে গোটা গ্রামে উত্তেজনা ছড়ানো হয়। এর খবর পেয়েই পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই তরুণের বসতবাড়ির আশেপাশে অবস্থান নেয়। শেষ পর্যন্ত সেই বাড়িটি রক্ষা করা যা। কিন্তু হামলাকারীরা দূর থেকে কিছু বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয়।

ফায়ার সার্ভিসের কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে জানানো হয় যে তারা রাত পৌনে ৯টা নাগাদ আগুন লাগার খবর পায়। এরপর পীরগঞ্জ থেকে দুটি, মিঠাপুকুর থেকে দুটি ও রংপুর থেকে একটি ইউনিট সেখানে আগুন নেভাতে যায়। ভোর ৪টা ১০ মিনিটে আগুন নেভানো সম্ভব হয়।

নিয়ন্ত্রণকক্ষের দায়িত্বরত কর্মকর্তার কথায়, পীরগঞ্জের মাঝিপাড়ায় ১৫জন মালিকের ২৯টি বসতঘর, দুটি রান্নাঘর, দুটি গোয়াল ঘর এবং ২০টি খড়ের গাদা আগুনে পুড়ে গিয়েছে। ‘উশৃংখল জনতা’ এই আগুন লাগিয়েছে বলে খবর মিলেছে।

দুর্গাপুজোর অষ্টমীর দিন বাংলাদেশের কুমিল্লা জেলায় এক দুর্গামণ্ডপে হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। এরপর চাঁদপুর, চট্টগ্রাম, নোয়াখালি, কক্সবাজার, ফেনী, নানান জেলা থেকে হিন্দু মন্দিরে হামলা ও ভাঙচুরের খবর উঠে আসে। এরই আঁচ লাগল এবার রংপুরে।

পীরগঞ্জের জেলেপল্লীতে লাগা আগুনের কয়েকটি ভিডিও গত রবিবার মাঝরাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। এই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে অন্ধকারের মধ্যে গ্রাম থেকে লাল আগুনের লেলিহান শিখা বেরোচ্ছে। এই সময় পুলিশ হামলাকারীদের বাধা দেওয়ারও চেষ্টা করে বলেও খবর।

পুলিশের সঙ্গে হামলাকারীদের সংঘর্ষের কিছু ভিডিও-ও ছড়িয়ে পড়েছে। তবে এই বিষয়ে বিশেষ কিছু জানা যায়নি।

Related Articles

Back to top button