ব্যাবসা, বাণিজ্য ও অর্থনীতি

অ্যাক্সিস ব্যাংকের মহান উদ্যোগ, কলকাতা পুলিশকে জানানো হল ‘পাওয়ার স্যালুট’, মিলবে বাড়তি পরিষেবা

ভারতের তৃতীয় বৃহত্তম বেসরকারি ব্যাংক, অ্যাক্সিস ব্যাংকে তরফে একটি মউ স্বাক্ষর করা হল কলকাতা পুলিশের সঙ্গে। পুলিশকর্মীদের আর্থিক প্রয়োজন মেটাতে ও নিরাপত্তা প্রদানে অ্যাক্সিস ব্যাংক একটি উদ্যোগ নিয়েছে। এই উদ্যোগের নাম ‘পাওয়ার স্যালুট’। জানা গিয়েছে, এই উদ্যোগের মাধ্যমে অ্যাক্সিস ব্যাংকের ডিজিটাল সলিউশন পুলিশকর্মীদের ব্যাংকিং সংক্রান্ত যে কোনও প্রয়োজন মুহূর্তে মেটাবে।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, এই উদ্যোগের ফলে কলকাতা পুলিশের কর্মীরা এবার থেকে সম্মানজনক বেতনের সঙ্গে বাড়তি বেশ কিছু সুযোগ-সুবিধা পাবেন। আজ, মঙ্গলবার লালবাজারে পুলিশ হেডকোয়ার্টারে মউ স্বাক্ষর উপলক্ষে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল।

এদিনের এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কলকাতা পুলিশের কমিশনার সৌমেন মিত্র (আইপিএস), অ্যাক্সিস ব্যাঙ্কের সিইও ও এমডি অমিতাভ চৌধুরি, অ্যাক্সিস ব্যাঙ্কের রিজিওনাল ব্রাঞ্চ ব্যাঙ্কিং হেড (ইস্ট) লাল সিং। এই তিন গণ্যমান্য ব্যক্তির উপস্থিতিতেই এই মউ স্বাক্ষরিত হয়।

পুলিশ সার্ভিসে বেতন ছাড়াও অ্যাক্সিস ব্যাংকের তরফে কলকাতা পুলিশ ঠিক কী কী সুবিধা পাবে, দেখে নেওয়া যাক একন নজরে-

  • দুর্ঘটনাজনিত কভারেজ ৩০ লাখ টাকা পর্যন্ত। যে কোনও পদের পুলিশকর্মী এই সুবিধা পাবেন।
  • শিক্ষা খাতে বাড়তি ৮ লাখ টাকা পর্যন্ত পাওয়া যাবে।
  • সম্পূর্ণভাবে সক্ষমতা হারালে ৩০ লাখ টাকা পর্যন্ত কভার বেনিফিটের সুবিধা।
  • আংশিকভাবে সক্ষমতা হারালে ৩০ লাখ টাকা পর্যন্ত পাওয়া যাবে।
  • ১.৫ লাখ টাকা জীবন বীমা কভারেজ।
  • বিমান দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে ১ কোটি টাকা পর্যন্ত কভার।
  • পরিবারের সদস্যের জন্য বিনামূল্যে অতিরিক্ত ডেবিট কার্ডের সুবিধা।
  • ইউনিভার্সাল অ্যাকাউন্ট নাম্বার, যা সারা দেশে ব্যবহার করা যাবে। অর্থাত্, যে কোনও ব্রাঞ্চ-এই “হোম ব্রাঞ্চ হিসাবে সুবিধা।

এদিনের এই অনুষ্ঠানে অ্যাক্সিস ব্যাঙ্কের এই উদ্যোগের বিষয়ে রিজিওনাল ব্রাঞ্চ ব্যাঙ্কিং হেড (ইস্ট) লাল সিং বলেন, “দেশের আসল নায়কদের আর্থিক স্বচ্ছলতা বজায় রাখা আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য। সাধারণ মানুষকে নিরাপত্তা ও যাবতীয় সেবা প্রদানের জন্য পুলিশকর্মীরা দিন-রাত এক করে কাজ করছেন। এই মউ স্বাক্ষরের মাধ্যমে আমরা পুলিশ ফোর্স-এর প্রতি নিজেদের দায়বদ্ধতা পালন করলাম। অঙ্গীকার করলাম, পুলিশকর্মীদের আর্থিক স্বচ্ছলতা প্রদানে আমরা দায়বদ্ধ। তাঁরা স্বার্থহীনভাবে দেশের কাজে নিজেদের ব্রতী করেছেন”।

Related Articles

Back to top button