ভাইরাল

বাবার সঙ্গে ক্ষেতমজুরি করে চলে সংসার, উচ্চশিক্ষার জন্য সকলের কাছে সাহায্য প্রার্থনা উচ্চমাধ্যমিকে ৯৪ শতাংশ নম্বর পাওয়া শ্রাবন্তীর

চলতি মাসের উচ্চমাধ্যমিকের ফলাফল ঘোষণা হয়েছে। করোনা কাল কাটিয়ে এই বছর উচ্চমাধ্যমিকে ফলাফল হয়েছে বেশ ভালো। রাজ্যের ২৭২ জন পড়ুয়া প্রথম দশে জায়গা করে নিয়েছে। সামগ্রিকভাবেও ফলাফল খুবই ভালো।

তবে এসবের মধ্যেও রয়েছে পরীক্ষায় অকৃতকার্য কিছু পড়ুয়া যারা যারা পাশ করানোর দাবীতে রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ দেখিয়েছে। তাদের দাবী, তাদের নাকি ইচ্ছা করে ফেল করানো হয়েছে। তবে আজ এমন এক পড়ুয়ার কথা জানব যে কী না সম্পূর্ণ নিজের চেষ্টায় উচ্চমাধ্যমিকে দুর্দান্ত ফল করেছে।

এই বছর উচ্চমাধ্যমিকে ৯৪ শতাংশ নম্বর নিয়ে পাশ করেছে শ্রাবন্তী বাউলদাস। তবে তার এই কষ্টের পিছনে লড়াইটা অনেকটা কঠিন। একরকম নিজের চেষ্টা ও অদম্য মনের জোরের কারণেই আজ সে এমন ফল করতে পেরেছে। রাস্তায় এসেছে অনেক বাধা, কিন্তু দমে যায়নি শ্রাবন্তী। নিজের লক্ষ্যে অবিচল থেকে সকলের প্রশংসা কুড়িয়েছে সে।

শ্রাবন্তীর বাবা মা কেউই স্কুলে যেতে পারেননি। ক্ষেতমজুরি এবং গৃহ পরিচারিকার কাজ করেই সংসার চলে তাদের। অনেক সময় বাবা মাকে সাহায্য করতেও যেতে হয়েছে শ্রাবন্তীকে। কিন্তু শত বাধা থাকলেও নিজের পড়াশোনার সঙ্গে কখনও আপোশ করে নি শ্রাবন্তী। কোনওদিন ফাঁকি দেয় নি পড়াশোনায়। আর সেই কঠিন অধ্যবসায়ের ফলেই আজ উচ্চমাধ্যমিকে ৯৪ শতাংশ নম্বর নিয়ে পাশ করেছে সে।

তার প্রাপ্ত নম্বর তালিকা দেখে সত্যিই অবাক হতে হয়। বাংলাতে ৯৫, ইংরেজিতে ৯২, এডুকেশনে ৯০, ভূগোলে ৯২, দর্শনে ৯৫ এবং পরিবেশ বিজ্ঞানে ৯৯ নম্বর পেয়েছে শ্রাবন্তী। কিন্তু এর নম্বর পাওয়ার পরও নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে এখন টানাপোড়েনে ভুগছে সে।  

উচ্চমাধ্যমিকে এত ভালো ফল করলেও, আদৌ উচ্চশিক্ষার জন্য কী করবে, তা ভেবে যেন কূলকিনারা পাচ্ছে না শ্রাবন্তী। কারণ সংসারে যে অভাব। সেই কারণে একটি ভিডিও পোস্ট করে সকলের থেকে সহযোগিতা চাইল এই পড়ুয়া। এই ভিডিওতে রয়েছে তার ফোন নম্বর। কেউ যদি তাকে সাহায্য করতে চায়, তাহলে সেই ফোন নম্বরে যোগাযোগ করতে পারেন বলে জানায় শ্রাবন্তী।

Related Articles

Back to top button