সব খবর সবার আগে।

গাজর বিভ্রাটের জেরে প্রবল বিতর্কের মুখে পড়ল এই নামী বিশ্ববিদ্যালয়!

গাজর নিয়ে তুমুল বিতর্কের মুখে পড়ল লণ্ডনের গোল্ডস্মিথ বিশ্ববিদ্যালয়। আর এই বিতর্কের উৎস একটা শিল্প প্রদর্শনকে কেন্দ্র করে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গ্রাম ও শহরের সম্পর্ক স্থাপন কেন্দ্রিক একটা শিল্প প্রদর্শনের জন্য রাফায়েল পেরেজ ইভানস নামে একজন শিল্পী লণ্ডনের গোল্ডস্মিথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে ২৯ টন গাজর মাটিতে ফেলে একটি পাহাড়ের রূপ দেন। আর এই ঘটনার পর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা প্রতিবাদে গর্জে ওঠেন।

ছাত্রছাত্রীদের বক্তব্য যেখানে গোটা পৃথিবীতে প্রাকৃতিক খাদ্যের জোগান দিনদিন কমতে থাকছে, সেখানে এই বিপুল পরিমাণ গাজর মাটিতে ফেলে নষ্ট করার কোনও যুক্তি নেই। এটা খাদ্য অপচয় ছাড়া আর কিছু নয়। বর্তমান পরিস্থিতিতে খাদ্য সংকট আরও তীব্র হয়েছে তাই প্রতিবাদে মুখর ছাত্রছাত্রীরা এই গাজরের পাহাড়ে উঠে ছবি তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্টও করতে শুরু করে দেন। Goldsmith Carrots নামে একটি ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টও বানানো হয়েছে এই প্রতিবাদের উৎস হিসেবে। সেখানে ছাত্রছাত্রীরা ছবি পোস্ট করে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। কেউ কেউ সেই গাজর সংগ্রহ করে বাড়িতেও নিয়ে চলে যাচ্ছেন।

কিন্তু শিল্পী রাফায়েল পেরেজ ইভানসের কী বক্তব্য? তিনি বলছেন, লণ্ডন তথা ইংল্যাণ্ডে সবজি হিসেবে গাজরের ব্যবহার খুব একটা বেশি হয়না। সেই কারণেই তিনি “Grounding” নামক তাঁর ওই শিল্পশৈলীতে গাজরকেই বেছে নিয়েছেন। এই শিল্পের মাধ্যমে তিনি গ্রামের সঙ্গে শহরের সম্পর্কের মেলবন্ধনের একটা প্রতিচ্ছবি তুলে ধরতে চেয়েছেন। তিনি আরও জানিয়েছেন এই গাজর একটাও নষ্ট হতে দেওয়া হবেনা। প্রদর্শনী হয়ে গেলেই সমস্ত গাজর সংগ্রহ করে সেগুলো বিভিন্ন পশু খামারে পশুদের খাদ্য হিসেবে বিতরণ করা হবে। কিন্তু তাও পিছু ছাড়ছেনা বিতর্ক।

দেখুন সেই গাজরের পাহাড় এবং তাকে কেন্দ্র করে প্রতিবাদের ছবি…

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...