নিউজ

হাসপাতালের চরম দুর্দশা জানিয়ে লাইভ করোনা আক্রান্তের, ভিডিও দেখে ব্যবস্থা রাজ্যের মন্ত্রীর

বুধবার হাওড়ার টিএল জয়সওয়াল হাসপাতালে করোনা সংক্রামিত হয়ে ভর্তি হন সালকিয়ার মৌমিতা ঘোষ। কিন্তু হাসপাতালের বেহাল দশায় তাঁর অবস্থা আরও শোচনীয় হয়ে ওঠে। তাই শেষমেষ কোনো উপায় দেখতে না পেয়ে সোমবার রাত ৮টার পর থেকে একের পর এক ফেসবুক লাইভ করতে থাকেন তিনি। সেই লাইভ ভাইরাল হয়ে পৌঁছে যায় রাজ্যের ক্রীড়ামন্ত্রীর কাছে।

https://www.facebook.com/mmtghosh000/videos/1887918561350021/

৬ দিন ধরে তিনি ওই হাসপাতালেই ভর্তি রয়েছেন। কিন্তু সেখানের চরম অব্যবস্থার জেরে মানুষ সুস্থ হওয়ার থেকে আরও অসুস্থ হয়ে পড়বেন। সেখানে একদিকে যেমন রয়েছে চিকিৎসার গাফিলতি, অন্যদিকে নিম্নমানের খাবার ও জলের অভাব। তাই বাধ্য হয়েই নিজের অভিযোগ জানাতে লাইভ করেন মৌমিতা। তিনি বলেন, ‘‌আমার এখানে প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট হচ্ছে। সাহায্য চেয়ে বারবার ডাকছি কিন্তু কেউ আসছে না। এমনকি খাবার জল পর্যন্ত নেই। কেউ কোনও খাবার দিচ্ছে না। এমনকি ডিম দিলেও, সেটি পচা। এখানে আমার কথা শোনার মতো কেউ নেই।’ মৌমিতার এই লাইভ বিদ্যুৎ গতিতে ভাইরাল হয়ে পড়ে। এরপরই অক্সিজেনের ব্যবস্থা করা হয় হাসপাতাল তরফে।

https://www.facebook.com/mmtghosh000/videos/1887228921418985/

এর পর তিনি আরও বলেন, ‘‌আমি থার্মোমিটার চেয়েছিলাম কিন্তু এদের কাছে নেই। এমনকি ব্লাডপ্রেসার মাপার যন্ত্রও নাকি খারাপ। শৌচালয়েও জল নেই।’‌ তবে সারা রাত জল না থাকলেও সকালে শৌচালয়ে জল সরবরাহ করা হয়। বিদ্যুৎগতিতে এই ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর হাসপাতালের তরফে এই ভিডিও ডিলিট করার কথা বলা হয় মৌমিতাকে। কিন্তু তিনি সে বিষয়ে গুরুত্ব দেন না। এমনকি মৌমিতা এদিন সকালে ফেসবুক লাইভেই বলেন, হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর্মীরা তাঁর মোবাইল নিতে চাইছেন। কিন্তু তিনি তা দিতে একদমই সম্মত নন।

https://www.facebook.com/mmtghosh000/videos/1888107504664460/

তাঁর এই ভিডিওটি এতো পরিমানে ছড়িয়ে যায় যে সেটি রাজ্যের ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী লক্ষ্মীরতন শুক্লার চোখে পড়ে। এরপরই এই ভিডিও’র তথ্যের উপর ভিত্তি করে তিনি মঙ্গলবার সকাল সকাল হাসপাতালে যান এবং মৌমিতার সমস্ত অভিযোগের বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করেন।

Related Articles

Back to top button