সব খবর সবার আগে।

অতিমারী কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে ভারতের পাশে আমেরিকা-ব্রিটেন! সাহায্যের আশ্বাস বিশ্বের তাবড় তাবড় শক্তির

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ফের মহামারীর আকার ধারণ করেছে ভারতে। প্রথমের থেকেও দিশাহীন অবস্থা দ্বিতীয়বারে। মাঝখানে কিছুটা সময় আশার আলো দেখা গেলেও ফের স্বাস্থ্যব্যবস্থার অন্ধকারে ভারত। অক্সিজেন, ওষুধ,  বেড সবকিছুর জন্যই চারিদিকে কঠিন পরিস্থিতি। এতদিন যে দেশ অন্য দেশ গুলির দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে এখন সেই দেশেরই করোনা পরিস্থিতি গুরুতর।

কিছুদিন আগে পর্যন্ত ভারত করোনা মোকাবিলায় বিশ্বের বহু দেশকে সাহায্য করছিল। প্রতিষেধক, ওষুধ, পিপিই কিট সরবরাহ করছিল। এ হেন সংকটের মুহূর্তে ভারতের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল বিশ্বের তাবড় তাবড় শক্তি। ফ্রান্স আগেই সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এবং ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনও।

আরও পড়ুন-সংকটজনক ভারতের করোনা পরিস্থিতি! ভারতকে ৫০টি অ্যাম্বুল্যান্স দিতে চেয়ে চিঠি পাঠাল পাকিস্তানের ইদি ফাউন্ডেশন

মার্চের শেষ থেকে ভারতে ব্যাপক আকার ধারণ করে করোনা। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে হাতের বাইরে বেরিয়ে যায় পরিস্থিতি।  এতদিন পর্যন্ত মার্কিন প্রশাসন সেভাবে ভারতের পাশে দাঁড়ানোর বার্তা দেয়নি। তবে শুক্রবার সেই বার্তা এল মার্কিন চেম্বার অফ কমার্সের চাপের পর। বাইডেন প্রশাসন এক বিবৃতি দিয়ে জানিয়ে দিল, “আমরা বুঝতে পারছি, ভারতের করোনা পরিস্থিতি শুধু ভারতের জন্য নয়, গোটা দক্ষিণ এশিয়া তথা গোটা বিশ্বের জন্য সংকট। আমরা ভারতীয় বন্ধুদের কী কঠিন পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে সেটা বুঝতে পারছি। আমরা ভারতে প্রয়োজনীয় পণ্য সরবরাহ নিশ্চিত করার পাশাপাশি, ভারতে আমাদের যেসব সঙ্গীরা রয়েছেন, তাঁদের বলব ভারত সরকারকে সর্বোচ্চ স্তরের সহযোগিতা করতে।”

মার্কিন শক্তির পর ভারতের পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দিল ব্রিটেন‌ও। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনও জানিয়েছেন, এই কঠিন পরিস্থিতিতে ভারতের পাশে দাঁড়াতে এবং সবরকমভাবে সাহায্য করতে প্রস্তুত ব্রিটেন। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন জানিয়েছেন, ভারতবাসীকে কীভাবে সাহায্য করা যায়, তা নিয়ে ইতিমধ্যেই আলোচনা শুরু করেছেন তাঁরা।

আপাত প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, ব্রিটেন ভারতকে ভেন্টিলেটর এবং করোনা চিকিৎসার সামগ্রী দিয়ে সাহায্য করতে পারে। সার্বিকভাবে, কঠিন লড়াইয়ে ফ্রান্স, আমেরিকা, ব্রিটেনের মতো শক্তিধর দেশকে পাশে পেয়েছে ভারত। কেন্দ্র দাবি করতেই পারে , এর আগে ভারত এই দেশগুলিকে ভ্যাকসিন এবং ওষুধ দিয়ে সাহায্য করেছিল, তারই  সুফল মিলছে এবার।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গতকাল ভারতকে সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছে প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তান‌ও‌l রাজনৈতিক স্বার্থের উর্ধ্বে মানবতাবাদ ভারতের এইরকম দুর্বিষহ পরিস্থিতিতে এমনটাই জানিয়ে ভারতের পাশে দাঁড়াতে চেয়েছে পাকিস্তানের ইদি ফাউন্ডেশন। মোট ৫০টি অ্যাম্বুলেন্স দিয়ে সাহায্য করতে চেয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছেন ইদি ফাউন্ডেশনের প্রধান ফইজল ইদি।

You might also like
Comments
Loading...