সব খবর সবার আগে।

নিষিদ্ধ ইসলামপন্থী দলের নেতাকে গ্রেফতার করায় সেই দলের হাতেই অপহৃত ৬ পুলিশ কর্মী! হুলুস্থুল পাকিস্তানে

ফের গন্ডগোল বেঁধেছে পাকিস্তানে। গত এক সপ্তাহ ধরে লাগাতার বিক্ষোভে জ্বলছে ইমরান খানের দেশ। কট্টর ইসলামপন্থী দল ‘তেহরিক-ই-লাবায়েক পাকিস্তান’-এর নেতাকে গ্রেফতার করার পর থেকেই শুরু হয় অশান্তি।  এই ঘটনার প্রতিবাদে অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে ইসলামাবাদ।

আর এরপর‌ই গতকাল অর্থাৎ রবিবার ৬ জন পুলিশকর্মীকে অপহরণ করল উক্ত ইসলামপন্থী সংগঠনটি। এর ফলে পরিস্থিতি আরও জটিল আকার ধারণ করল।

রবিবাসরীয় পাকিস্তানে, দিনভর পুলিশের সঙ্গে টিএলপি’র সমর্থকদের সংঘর্ষ চলতে থাকে। নিষিদ্ধ ওই সংগঠনের দাবি, তাদের চারজন সমর্থক মারা গিয়েছে পুলিশের গুলিতে।

জানা গেছে, হিংসার আঁচ যাতে আরও ছড়িয়ে না পড়ে সেই কারণেই পাকিস্তানের কোনও নিউজ চ্যানেলে ওই সংঘর্ষের দৃশ্য দেখানো হয়নি। কিন্তু টিএলপি’র বহু সমর্থক সোশ্যাল মিডিয়ায় রবিবারের সংঘর্ষের নানা ভিডিও শেয়ার করেছে। সেই সঙ্গে তাদের দলের সমর্থনে হ্যাশট্যাগও ছড়িয়ে দিয়েছে তারা। যা পাকিস্তানের ট্রেন্ডিং হয়ে গিয়েছে।

কালকের ঘটনাটি কতটা হিংসাত্মক ছিল তা বর্ণনা করতে গিয়ে লাহোর পুলিশের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন দু’টি জ্বালানির ট্যাঙ্কারে কয়েক হাজার লিটার পেট্রল নিয়ে সংঘর্ষ শুরু করে টিএলপি সমর্থকরা। তারা পুলিশ কর্মীদের গায়ে পেট্রল বোমা ও পাথর ছুঁড়ে মারতে থাকে। এরপর ৬ জনকে অপহরণ করে নিজেদের সদর দপ্তরে নিয়ে যায় তারা। সদর দপ্তরে যাওয়ার সব রাস্তা অবরুদ্ধ করে দিয়ে পুলিশকে আরও বিপাকে ফেলার পরিকল্পনা করা হয়েছে। এখনও সদর দপ্তরে পৌঁছতে পারেনি পুলিশ।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য এই ইসলামপন্থী সংগঠনটি আগে থেকেই সরকারকে হুঁশিয়ারি দিয়েছিল ২০শে এপ্রিলের আগেই পাকিস্তানের ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করতে হবে। সেই দাবি মানেনি ইমরান সরকার। সেখান থেকেই শুরু প্রতিবাদের। আসলে ফ্রান্সের ‘শার্লি এবদো’-তে হজরত মহম্মদের ব্যঙ্গচিত্র আঁকাকে কেন্দ্র করেই টিএলপির বিক্ষোভ। তাদের দাবি, ফ্রান্সের সঙ্গে সব রকম সম্পর্ক বন্ধ করতে হবে। কেবল ফরাসি রাষ্ট্রদূতই নয়, দেশ থেকে চলে যেতে হবে ফরাসি নাগরিক ও সংস্থাগুলিকেও।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...