সব খবর সবার আগে।

নিজের দেহরক্ষীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক! রাজ পরিবারের কেচ্ছা ঢাকতে দামী ঘুষ দিলেন রানীমা!

বাইরে থেকে যতই চাকচিক্যময় জীবন লাগুক বিশ্বের বিভিন্ন রাজপরিবারের অন্দরে লুকিয়ে আছে বিভিন্ন রঙিন ও রসালো কেচ্ছা কাহিনী। এবার দুবাইয়ের রাজপরিবারের একটি বিতর্কিত কাহিনী প্রকাশ্যে জানলে চক্ষুচড়কগাছ হয়ে যাবে আপনার।
দুবাইয়ের বর্তমান শাসক তথা রাজা শেখ মহম্মদ অল মখতুমের ষষ্ঠ পত্নী হায়া তাঁর দেহরক্ষী রাসেল ফ্লাওয়ার্সের সঙ্গে বিবাহ বর্হিভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন। তাদের মধ্যে প্রায়শই যৌন সম্পর্ক হত। আর এই কেচ্ছা চাপা দিতেই দেহরক্ষীকে নামীদামী ঘুষ দিয়েছিলেন রানীমা! যদিও শেষ পর্যন্ত গোটা ঘটনাটি সামনে চলে আসে।দুবাইয়ের রাজ পরিবার নিয়ে ছিছিক্কার পড়ে যায় গোটা জগতে।

রানীমার বয়স তখন ৪৬ আর দেহরক্ষীর বয়স ৩৭। একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী রানীমার দেহরক্ষীকে দিয়েছিলেন১.২ মিলিয়ন ইউরো। এছাড়াও একাধিক মূল্যবান উপহার যেমন এক ভিন্টেজ শটগান, অপূর্ব কারুকাজ করা সিগার রাখার এক হিউমিডর নিজের দেহরক্ষীকে দিয়েছিলেন রানীমা। এর মধ্যে থাকা সিগারেরই মূল্য নাকি শুধু কয়েক হাজার পাউন্ড!
এছাড়াও একটি বহুমূল্য চুনির আংটিও নিজের দেহরক্ষীকে দিয়েছিলেন রানীমা।

রয়েছে আরও চমক। ফ্লাওয়ার্সের জন্য বিশেষভাবে গাড়ির নেমপ্লেটও বানিয়ে দিয়েছিলেন হায়া। তাতে সৌভাগ্যসূচক সংখ্যা বসিয়ে লেখা ছিল- RU55ELLS! যার মোট মূল্য প্রায় ১২ কোটি টাকা!
কিন্তু গোটা ঘটনাটি জানতে পেরে প্রতিবাদ করেন দেহরক্ষীর স্ত্রী আর বিবাহবিচ্ছেদ করতে চান স্বামীর সঙ্গে। এরপর যখন রানীমার সঙ্গে রাজার বিবাহবিচ্ছেদের মামলা লন্ডন হাইকোর্টে ওঠে তখন সন্তানদের কাস্টডি নিয়ে লড়াই করার সময় এই গোপন সম্পর্ক প্রকাশ্যে চলে আসে। যা জানতে পেরে তাজ্জব হয়ে যায় গোটা বিশ্বের মানুষ।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...