আন্তর্জাতিক

সন্ত্রাসমূলক কার্যকলাপে প্ররোচনার অভিযোগ, পাক ইমামকে হেফাজতে নিল ফ্রান্স!

এবার পাকিস্তানের এক ইমামকে জেলে পাঠাল ফ্রান্স। এছাড়া দেশ থেকেও বহিষ্কার করা হয়েছে ওই ইমামকে। সন্ত্রাসমূলক কাজ কর্মে উস্কানি দেওয়ার জন্য দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন পাকিস্তানের ওই ইমাম। জানা গিয়েছে তার ১৮ মাসের জেল হেফাজত হয়েছে। তার ১৮ মাসের জেল হেফাজতের সাজা শেষ হলেঈ তাকে দেশ থেকে বহিষ্কার করা হবে বলে জানা গিয়েছে।

ঠিক কী ঘটেছিল যার জন্য ফ্রান্স এত কড়া শাস্তি দিচ্ছে এই ইমামকে? স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্র অনুসারে জানা যাচ্ছে, লুকমান হায়দার নামে ইমাম আজ থেকে পাঁচ বছর আগে পাকিস্তান থেকে ফ্রান্সে এসেছিলেন। বিগত চার বছর তিনি প্যারিসেই ছিলেন কিন্তু কয়েক মাস আগে ফ্রান্সের বৃহত্তম পাক অধ্যুষিত এলাকা ভিলিয়ার্স-লে-বেল অঞ্চলে বসবাস করতে শুরু করেন। তিনি মুখে বলতেন যে তিনি পাকিস্তান থেকে দারিদ্র্য দূর করতে চান আসলে তিনি ফ্রান্সে ইসলামিক মতবাদ প্রচার করার কাজই করতেন।
কিন্তু গত মাসের ২৫ তারিখে প্যারিসের শার্লি এবদো পত্রিকার পুরনো অফিসের সামনে যে সন্ত্রাসবাদী হামলা হয় তার পরেই সোশ্যাল মিডিয়াতে লুকমান তিনটি প্ররোচনামূলক ভিডিও পোস্ট করেন। হামলাকারীর প্রশংসা করে লুকমান লেখেন, “ওই বীর পুরুষকে পাকিস্তানের সবাই চিনে গিয়েছে। নবীর কাছ থেকে মর্যাদা ও সম্মান অর্জন করেছে।” এর পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদের সমর্থনে বেশ কিছু মন্তব্যও করে লুকমান।
এরপরই প্রশাসনের নজরে আসে এই বিতর্কিত ভিডিওগুলি এবং সঙ্গে সঙ্গে তাকে গ্রেফতার করা হয়। বৃহস্পতিবার প্যারিসের একটি আদালত তাকে দোষী সাব্যস্ত করে দেড় বছরের জেলের সাজা শোনায়। আর দেড় বছরের জেল সম্পন্ন হলেই তাকে দেশ থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।

Related Articles

Back to top button