আন্তর্জাতিক

PPE-র অভাব, নগ্ন হয়ে চিকিৎসা করছেন প্রতিবাদী ডাক্তাররা

তাঁরাই এখন সুপারহিরো অথচ তাঁদের সুরক্ষা তলানিতে। পিপিই এর অভাবে রীতিমত আশঙ্কাজনক অবস্থায় রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন ডাক্তাররা। কিন্তু আর থাকতে না পেরে অভিনব পন্থায় প্রতিবাদ শুরু করলেন জার্মানির ডাক্তাররা। করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষা পেতে প্রয়োজনীয় জামাকাপড় ও জিনিসপত্রের অভাবের জন্য নগ্ন হয়ে বিক্ষোভ দেখালেন একদল জার্মান ডাক্তার।

করোনাভাইরাসের রোগীদের চিকিৎসা করতে গিয়ে তাঁরা অসুরক্ষিত বোধ করছেন তাই এই প্রতিবাদের নাম রাখা হয়েছে ‘নগ্ন সংশয়’। প্রতিবাদী ডাক্তারদের নেতৃত্বের দায়িত্বে থাকা ডঃ রুবেন বারনাউ জানিয়েছেন, এই ভাইরাস মোকাবিলায় জরুরি জিনিসপত্র তাঁদের দেওয়া হচ্ছে না। তাঁর কথায়, ‘সুরক্ষা ছাড়া আমরা কতটা এই রোগের দ্বারা ঝুঁকিপূর্ণ, তা বোঝাতেই নগ্ন হওয়া।’

চিকিৎসার সময় ডাক্তাররা নগ্ন হয়ে কেউ ফাইলে পেছনে, কেউ টয়লেট রোলের পেছনে, মেডিক্যাল জিনিসপত্র বা প্রেসক্রিপশনের পেছনে নিজেদের ঢেকে রেখেছেন। এক ডাক্তার ডঃ জানা হুসেমান জানিয়েছেন, ‘অবশ্যই আমরা রোগীদের চিকিৎসা করতে চাই। কিন্তু আমাদের জন্য প্রয়োজনীয় সুরক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে।’ এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই সমালোচনার ঝড় উঠেছে জার্মান সরকারের বিরুদ্ধে।

গত জানুয়ারিতে করোনা হানা দেওয়ার পর থেকে বারবার আরও পিপিই-র দাবি জানিয়ে আসছেন জার্মান ডাক্তাররা। জার্মান ফার্মগুলি যে পিপিই-র সরবরাহ করছে তা প্রয়োজনের তুলনায় যথেষ্ট কম। মাস্ক, গগলস, গ্লাভস ও অ্যাপ্রনের সরবরাহ বাড়ানোর জন্য দাবি জানিয়েছেন ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। অনেক জায়গায় আবার পিপিই-চুরি যাওয়ার ঘটনাও ঘটছে। এই জন্য হাসপাতালগুলিতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা বাড়ানোও হয়েছে।

Related Articles

Back to top button