সব খবর সবার আগে।

কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে কিছু করুন, রাষ্ট্রপুঞ্জকে করজোড়ে অনুরোধ পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের

ভারতের সঙ্গে শত্রুতার নতুন পন্থা খুঁজে বের করতে চাইছে পাকিস্তান, উঠল এমনই অভিযোগ। কাশ্মীর ইস্যুকে নতুন করে বিশ্বসভায় তুলে ভারতকে বারবার বিড়ম্বনার মুখে ফেলতে চাইছে পাকিস্তান। যদিও এতে বেইজ্জত হতে হচ্ছে ভারতের পড়শি দেশকেই। মঙ্গলবার রাষ্ট্রপুঞ্জের জেনারেল অ্যাসেম্বলি প্রেসিডেন্ট ভলকান বজকির মঙ্গলবার একটি সাংবাদিক সম্মেলন করেন যেখানে উপস্থিত ছিলেন পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি। পাক প্রশাসনের আমন্ত্রণে ভলকান রবিবার দু’দিনের সফরে ইসলামাবাদে এসেছেন। সেখানেই ভলকান বলেন যে তিনি এই বিষয়ে নিজস্ব এক্তিয়ারের মধ্যে থেকে ভারত ও পাকিস্তানকে সাহায্য করতে রাজি। কিন্তু এর জন্য দুই পক্ষকেই রাজি থাকতে হবে। তার আরও বক্তব্য দক্ষিণ এশিয়ার শান্তি বজায় রাখার জন্য কাশ্মীর ইস্যুর সমাধান হওয়া অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বলে তিনি মনে করেন।

কাশ্মীর ইস্যুকে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরার জন্য পাকিস্তান দীর্ঘদিন ধরেই চেষ্টা করে আসছে। বর্তমানে আর কোন উপায় না দেখে এবার তারা রাষ্ট্রপুঞ্জের জেনারেল অ্যাসেম্বলি প্রেসিডেন্টকে এই ব্যাপারে সামিল করতে চাইছে। এই সফরে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে দেখা করেন রাষ্ট্রপুঞ্জের জেনারেল অ্যাসেম্বলি প্রেসিডেন্ট। এবং প্রাক্তন এই ক্রিকেট তারকাকে তিনি বিশ্বের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের মধ্যে পরিচিত মুখ বলে অভিহিত করেন। অপরদিকে এই সাক্ষাতে ইমরান খান ভলকানকে রীতিমতো হাতজোড় করে অনুরোধ করেন যে রাষ্ট্রপুঞ্জে যেন এই কাশ্মীর ইস্যুকে এবার গুরুত্ব দিয়ে দেখে।

যদিও নয়াদিল্লি সাফ জানিয়ে দিয়েছে যে এই ব্যাপারটি ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। এবং কাশ্মীর সীমান্তে কোনরকম কিছু হলে তা ভারত এবং পাকিস্তানের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক ইস্যু। সেখানে তৃতীয় পক্ষের কোনো হস্তক্ষেপ মেনে নেওয়া হবে না।

ভারতের ৩৭০ ধারা তুলে দেওয়ার পর থেকেই পাকিস্তান কাশ্মীর সংক্রান্ত গোটা বিষয়টি বারংবার বিশ্বের বিভিন্ন সভায় তুলে ধরার চেষ্টা করে যাচ্ছে যেখানে ভারত স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে যে, এই ব্যাপারটি সম্পূর্ণ ভারতের নিজস্ব বিষয়। কাশ্মীর উপত্যকায় পাকিস্তান নিজের জঙ্গি কার্যকলাপ বন্ধ রাখেনি। উপরন্তু পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ভারতীয় সরকারের বিরুদ্ধে ভয়াবহ সব অভিযোগ এনেছেন এবং ভারতের বিরুদ্ধে ভুয়ো খবরও ছড়িয়েছেন। তিনি এই ইস্যুকে বারবার তুলে ধরে একটি অবস্থা সৃষ্টি করার চেষ্টা করে চলেছেন। কিন্তু আন্তর্জাতিক স্তরে তিনি বারবার পরাজিত হচ্ছেন এই কাশ্মীর ইস্যুকে তুলে ধরার জন্য। কারণ বহির্বিশ্ব থেকে পাকিস্তানকে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে এটা ভারত ও পাকিস্তানের দ্বিপাক্ষিক বিষয়। এখানে আন্তর্জাতিক স্তরে কিছু করা আইনগতভাবে সঠিক নয়।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Leave a Comment