সব খবর সবার আগে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের সরঞ্জাম দাবি করার অভিযোগে বন্দী পাকিস্তানের চিকিৎসকরা পেলেন মুক্তি, পাঠানো হচ্ছে সরঞ্জাম, জানাল পাক সেনাবাহিনী

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

পাকিস্তানি সেনাবাহিনী মঙ্গলবার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হল বন্দী চিকিৎসকদের প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি দেওয়ার জন্য। সোমবার পাকিস্তানের কোয়েটা প্রদেশে ক্রমবর্ধমান করোনা ভাইরাস আক্রমণের চিকিৎসার জন্য সুরক্ষামূলক সরঞ্জামের অভাবের প্রতিবাদে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করেন কয়েকজন চিকিৎসক। তারপরই তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রাদেশিক মুখপাত্র লিয়াকত শাহওয়ানি জানিয়েছেন, এক দিন পরেই তাদের মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার সেনাবাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “পিপিই (ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম) সহ চিকিৎসার সরঞ্জামের জরুরি সরবরাহ কোয়েটায় পাঠানো হচ্ছে।”

তবে কিছু ডাক্তার বলেছেন যে পুলিশ তাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছে এবং তাদের কয়েকজন সহকর্মীকে মারধর করা হয়েছে। চিকিৎসকরা ভয়ে তাদের নাম দিতে অস্বীকার করেছেন।

পাকিস্তান করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পরে দু’জন চিকিৎসক মারা গেছেন, যেখানে ৪,০০৪ টি সংক্রমণ এবং ৫৪ টি মৃত্যুর রেকর্ড হয়েছে। প্রতিবেশী ইরান থেকে ফিরে আসা তীর্থযাত্রীদের অনেকের মধ্যেই সন্ধান পাওয়া গিয়েছে এই ভাইরাসের। পাকিস্তানি কর্তৃপক্ষ ১৪ই এপ্রিল পর্যন্ত দেশব্যাপী লকডাউন জারি করেছে।

অন্যদিকে, ইরানে সরকার মঙ্গলবার জানিয়েছে  তারা সম্ভাব্য রোগীদের পরীক্ষা করা বাড়িয়ে দেবে, তবে তারা জানায়নি , তাদের কাছে কত পরীক্ষার কিট রয়েছে ।

ইরানের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সঈদ নামাকী বলেছেন যে এ জাতীয় সংক্রমণের সক্রিয় তদন্তের ফলে এই ভাইরাসকে মে মাসের মাঝামাঝি সময়ে নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে বলে আশা করা যেতে পারে।

নামাকি বলেন, “এই পদক্ষেপের সাহায্যে আমরা লক্ষণ ছাড়াই লোকদের কাছে যাব,” এতে যোগ দেওয়ার জন্য প্রচুর পরীক্ষার প্রয়োজন হবে। তিনি এই ব্যাপারে বিস্তারিত ব্যাখ্যা করেননি। স্বাস্থ্য মন্ত্রক বলেছে যে অ্যাসিম্পটম্যাটিক মামলাগুলি অনুসন্ধানের জন্য শহর এবং আন্তঃনগর ভ্রমণ এবং কোয়ারেন্টাইন সকল ক্ষেত্রেই পৌঁছানো হবে।

মঙ্গলবার ইরানের রাষ্ট্রীয় টিভি জানিয়েছে যে নতুন করে করোনা ভাইরাস আরও ১৩৩ জনের প্রাণ নিয়েছে এবং ৬২,৫৮৯ টি নিশ্চিত সংক্রমণের মধ্যে এই দেশের মৃত্যুর সংখ্যা ৩৮৮২-এ দাঁড়িয়েছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের মুখপাত্র কিয়ানুশ জাহানপুর বলেছেন, এখন পর্যন্ত ২৭,০৯৯ জন সুস্থ হয়ে উঠেছে এবং ৩,৯৮৭ জন আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছেন।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.