আন্তর্জাতিক

বিশেষ উদ্বেগজনক দেশের আখ্যা দেওয়া হল পাকিস্তান ও চীনকে, ধর্মীয় স্বাধীনতার অভাব দেশগুলির তালিকা প্রকাশ করল আমেরিকা

ধর্মীয় স্বাধীনতার অভাব রয়েছে এমন কিছু দেশের একটি তালিকা প্রকাশ করা হল আমেরিকার তরফ থেকে। বিশেষ উদ্বেগজনক দেশ হিসেবে ১০টি দেশের মধ্যে সবার প্রথমেই রয়েছে চীন ও পাকিস্তানের নাম। এই দেশগুলির বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতে পারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, এমনটাই জানালেন মার্কিন বিদেশসচিব মাইক পম্পে।

বেশ কিছু দেশে যেখানে ধর্মীয় স্বাধীনতার অভাব রয়েছে, এমন কিছু দেশকে চিহ্নিত করা হল বিশেষ উদ্বেগজনক দেশ হিসেবে। চীন ও পাকিস্তান ছাড়াও এই তালিকায় রয়েছে এরিটরিয়া, মায়ানমার, ইরান, উত্তর কোরিয়া, সৌদি আরব, নাইজেরিয়া, তুর্কেমেনিস্তান, ও তাজাকিস্তান। পম্পে জানান, এই সমস্ত দেশের মানুসেরা নিজেদের ইচ্ছামতো ধর্মচর্চা করতে পারেন না। এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে নানা রকম বাধার সৃষ্টি হয়। জানা গিয়েছে, নিজেদের কূটনৈতিক স্বার্থের কথা ভেবে আমেরিকা এতদিন এই দেশগুলির বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।

কিউবা, কোমোরাস, রাশিয়া ও নিকারাগুয়াকে বিশেষ তালিকার অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এই দেশগুলির ধর্মীয় স্বাধীনতার উপর মারাত্মক আঘাত এলেও সেখানকার সরকার এই বিষয়ে কিছুই করেননি বলেও অভিযোগ উঠেছে। এই বিষয়ে পম্পে বলেন যে, বিশ্বের যেখানেই ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়ানোর চেষ্টা করা হবে, তাদের সকলের বিরুদ্ধে আমেরিকা সরব হবে।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, US Commission of International Religious Freedom ২০০২ সাল থেকেই পাকিস্তানকে বিশেষ উদ্বেগের প্রয়োজনীয় দেশের তালিকাভুক্ত করেছে। কিন্তু আমেরিকার সরকার তাদের ২০১৪ সালেই প্রথমবার এই তালিকায় রেখেছে। যে হারে দেশের বিভিন্ন সংখ্যালঘুদের উপরে পাকিস্তান অত্যাচার চালায়, এই কারণেই এই তালিকায় ঠাঁই পেয়েছে সে। তাছাড়া, চীনও যেভাবে তিব্বতের বৌদ্ধ ও মুসলমানদের বিরুদ্ধে আচরণ করে, সেই কারণেই শি জিনপিং-য়ের দেশ এই তালিকার অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।

তাছাড়াও জানা গিয়েছে, বিশেষ উদ্বেগজনক দেশ ছাড়াও বিশেষ উদ্বেগজনক কিছু জঙ্গি সংগঠনকেও একটি তালিকার অন্তর্ভুক্ত করেছে আমেরিকা। এর মধ্যে রয়েছে, আলকায়দা, আইএস জঙ্গি সংগঠন ছাড়াও আরও অন্যান্য নাম।

Related Articles

Back to top button