আন্তর্জাতিক

“মানুষের স্বার্থে সুরক্ষা বিধি মেনে করোনার টিকা তৈরি করুন”, রাশিয়াকে আবেদন জানাল হু

এক মাসেরও কম সময়ের মধ্যে তিন পর্যায়ের হিউম্যান ট্রায়াল শেষ করে করোনার ভ্যাকসিন আবিস্কারের দিক থেকে বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে নিজের নাম স্বর্ণাক্ষরে খোদাই করেছে রাশিয়া। কিন্তু আদৌ এত কম সময়ে একটি ভ্যাকসিন তৈরি করা সম্ভব? এই টিকা তৈরির ক্ষেত্রে সত্যিই কি সব দিক দিয়ে সুরক্ষাবিধি মেনে তার কার্যকারিতা পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে? রাশিয়ার গামালেই ইনস্টিটিউটের তৈরি করোনা প্রতিষেধক নিয়ে এমন নানা প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন বিজ্ঞানীরা। এ সব প্রশ্নের প্রসঙ্গে এবার রাশিয়াকে সঠিক পদ্ধতি ও সুরক্ষাবিধি মেনে করোনা প্রতিষেধক তৈরি করার আর্জি জানাল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

মঙ্গলবার WHO-এর মুখপাত্র খ্রিশ্চিয়ান লিন্ডমিয়ার বলেন, ওষুধ হোক বা প্রতিষেধক, জনসাধারণের জন্য ছাড়ার আগে সেগুলির সুরক্ষা ও কার্যকারিতা খতিয়ে দেখা আবশ্যক। এমনকি এর জন্যও নির্দিষ্ট নির্দেশিকা রয়েছে। এই ওষুধ বা টিকাগুলি প্রয়োগের ক্ষেত্রে কোনো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে কিনা, সে সম্পর্কেও সুনিশ্চিত হওয়াটা প্রয়োজনীয়।

হু রাশিয়ার কাছে আবেদন জানায়, সাধারণ মানুষের কথা মাথায় রেখে তারা যেন টিকা তৈরির ক্ষেত্রে সঠিক পদ্ধতি মেনে চলে। পাশাপাশি সুরক্ষা বিষয়ক নিয়ম কানুনগুলিও মেনে চলার অনুরোধ জানায় হু।

প্রসঙ্গত, রাশিয়ার সংবাদ মাধ্যম তাদের স্বদেশীয় টিকার বিষয়ে জানায়, চলতি মাসের ১০ থেকে ১২ তারিখের মধ্যে বাজারে চলে আসবে বিশ্বের প্রথম করোনা প্রতিষেধক। ইতিমধ্যেই সেই প্রতিষেধকের হিউম্যান ট্রায়াল পর্ব সম্পন্ন হয়েছে। এমনকি গত সপ্তাহে রুশ স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, এই টিকাকে আগামী মাসেই সাধারণের জন্য ছাড়ার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। তাই এখন জোর কদমে চলছে টিকা তৈরির কাজও। এ বছরের মধ্যেই সাড়ে ৪ কোটিরও অধিক ডোজ তৈরি করতে পারবে রাশিয়া। এরপর অক্টোবর থেকে দেশের জনসংখ্যার একটা বড় অংশকে করোনার প্রতিষেধক দেওয়ার কথা জানায় রাশিয়ার স্বাস্থ্য দফতর।

Related Articles

Back to top button