কলকাতা

‘নিজের করে খাওয়ার জায়গা তৃণমূল নয়, এখানে ধান্দাবাজদের কোনও জায়গা নেই’, ২১শে জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে বিস্ফোরক অভিষেক

আজ ২১শে জুলাই। ধর্মতলায় চলছে শহিদ দিবসের সমাবেশ। তৃণমূলের নানান নেতা-নেত্রীরা এদিন নিজেদের বক্তব্য রাখেন এই একুশে জুলাইয়ের মঞ্চে। তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় মঞ্চে ওঠার কিছুক্ষণ আগেই শুরু হয় বৃষ্টি। এই বৃষ্টিকে শুভ ইঙ্গিত বলেই জানান অভিষেক।

এদিম মঞ্চে ওঠে প্রথমের অভিষেক বলেন, “আজকের ২১ জুলাইয়ের সমাবেশ সর্বকালীন রেকর্ড ছাড়িয়ে গিয়েছে। বৃষ্টি আমাদের কাছে শুভ। বৃষ্টি যখনই হয়েছে, বিরোধীরা ধরাশায়ী হয়ে গিয়েছে”। এর পাশাপাশি এদিন অভিষেক আরও বলেন, “নিজের করে খাওয়ার জায়গা তৃণমূল নয়। এই তৃণমূলে ধান্দাবাজ নেই। এই তৃণমূলে মীরজাফর নেই”।

একুশের মঞ্চ থেকেই কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বাংলাকে বঞ্চনা করার অভিযোগ আনেন অভিষেক। বলেন, “১০০ দিনের কাজের টাকা দিচ্ছে না দিল্লি। কিন্তু, কোনওভাবেই দিল্লির কাছে হাত পাতবে না বাংলা। প্রকল্প হলে বাংলায় নামে হবে। বাংলার আবাস যোজনা, বাংলার ,সড়ক যোজনা। যদি না বাংলাকে টাকা দিতে চায় কেন্দ্র, তাহলে সেই টাকা লাগবে না”।  অভিষেকের কথায়, “নেতা থেকে কর্মীদের সম্মান এই দলে অনেক বেশি। মুখ দেখিয়ে, দাদার জলের বোতল বয়ে পাব হবে না। যতবড় নেতার ছত্রছায়ায় থাকুন লাভ হবে না”।

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি বলেছিল যে বাংলায় ২০০-এর বেশি আসন পাবে বিজেপি। কিন্তু তা সেঞ্চুরিও পার করে নি। সেই নিয়েও আজ একুশের মঞ্চ থেকে বিজেপিকে কটাক্ষ করেন অভিষেক। বেশ স্পষ্টভাবেই তিনি জানিয়ে দেন যে তৃণমূলের পরবর্তী লক্ষ্য পঞ্চায়েত ভোট নয়, বরং দিল্লির মসনদ।

এদিন অভিষেকের পর মঞ্চে বক্তৃতা রাখেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন,“তৃণমূল থাকলে লক্ষ্মীর ভান্ডার পাবেন। ট্যাব পাবেন। তৃণমূল সরকার থাকলে ভাতা পাবেন, পেনশন, রেশন পাবেন। সারা দেশে ৪৫ শতাংশ বেকারত্ব বেড়েছে। আর বাংলায় ৪০ শতাংশ বেকারত্ব কমেছে”।

এর পাশাপাহি এদিন বিকাশ ভট্টাচার্যকে তোপ দাগেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, বলেন, “১৭ হাজার শিক্ষকের চাকরি তৈরি আছে, মামলার জন্য দিতে পারছি না”। এদিন GST নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর কথায়, “একবাটি মুড়ি কিনে খাব তাতেও GST”। প্রতীকী হিসেবে এদিন মুড়ি দেওয়া হয়।

Related Articles

Back to top button