কলকাতা

করোনা জেরে পাল্টাচ্ছে ইতিহাস! এই প্রথম কলকাতা পুরসভায় বসছেন প্রশাসক

করোনা বদলে দিচ্ছে সবকিছু, উল্টাচ্ছে সব হিসেব। কলকাতা পুরসভার ইতিহাসে এই প্রথমবার বসতে চলেছেন প্রশাসক। ৮ই মে বসবেন প্রশাসক। মঙ্গলবার একথাই জানালেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। তবে কে হতে পারেন প্রশাসক? সে বিষয়ে এখনও কোনও ঘোষণা হয়নি। মেয়র ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, “প্রশাসক কে হবেন, সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আগামী ২-১ দিনের মধ্যে নির্দেশিকা প্রকাশ করা হবে।”

এই বছর এপ্রিলের মাঝামাঝি নাগাদ পুরভোট হতে পারে এমনটাই প্রস্তাব দিয়েছিল রাজ্য সরকার। কিন্তু এরই মাঝে হানা দেয় করোনা। মারণ ভাইরাসের জেরে দেশজুড়ে ২৪ মার্চ থেকে লকডাউন ঘোষণা করা হয়। দু দফা পেরিয়ে এখন চলছে তৃতীয় দফার লকডাউন। ১৭ মে পর্যন্ত জারি থাকবে এইবারের লকডাউন। আর এর জেরেই হিসেবে গরমিল হয়ে গিয়েছে। কলকাতা পুরসভা ইতিহাসে প্রথমবার বসতে চলেছেন প্রশাসক।

করোনা আতঙ্ক দেখা দিতেই দেশজুড়ে জমায়েতের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে কেন্দ্র। সেই পরিস্থিতিতে পুরভোটের প্রচার ঘিরে অনিশ্চয়তা দেখা দেয়। এরপরই সবকটি রাজনৈতিক দল পুরভোট স্থগিত করার পক্ষেই রায় দেয়। রাজনৈতিক দলগুলির সঙ্গে আলাপ আলোচনার পর নির্বাচন কমিশনও পুরভোট আপাতত স্থগিত করার বিষয়েই সিদ্ধান্ত নেয়। আর এর ফলেই প্রশ্নচিহ্ন দেখা দেয় কলকাতা পুরসভার ভবিষ্যৎ নিয়ে। কারণ কলকাতা পুরসভার আইন অনুযায়ী প্রশাসক বসানো যায় না। শেষমেশ আজ মেয়র ফিরহাদ হাকিম জানালেন, উদ্ভূত জরুরি পরিস্থিতিতে কলকাতা পুরসভায় প্রশাসক বসানোর পথেই হাঁটছে রাজ্য সরকার।

এদিন পুরমন্ত্রী তথা মেয়র ফিরহাদ হাকিম বলেন, “ভোট হচ্ছে না। সেই কারণে প্রশাসক বসানোর সিদ্ধান্ত। কারণ কাজকর্ম তো আটকে রাখা যাবে না। এখন কলকাতা পুরসভার আইন অনুযায়ী প্রশাসক বসানো যায় না। তাই অ্যাডভোকেট জেনারেলের কাছে মতামত চেয়ে পাঠানো হয়েছিল। রিমুভ্যাল অফ ডিফকাল্টিস অ্যাক্ট-এ এই প্রশাসক বসানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে। কারণ এখন একটা অস্বাভাবিক পরিস্থিতি চলছে। ভোট করা সম্ভব নয়। সেটা নির্বাচন কমিশন আগেই জানিয়েছে। সুপ্রিম কোর্টও জানিয়েছে। তাই যতদিন পর্যন্ত না ভোট হচ্ছে, ততদিন প্রশাসক কাজ চালাবেন।”

প্রসঙ্গত, ৭ই মে মেয়র হিসেবে তাঁর শেষ দিন। ৭ তারিখের পর আর মেয়র থাকতে পারবেন না ফিরহাদ হাকিম। ৮ তারিখ থেকে কলকাতা পুরসভা চালাবেন প্রশাসক। এখন প্রশাসক কে হবেন? বর্তমান কমিশনার না অন্য কেউ, তা শীঘ্রই নির্দেশিকা জারি করে জানাবে রাজ্য। পাশাপাশি,শুধু কলকাতা পুরসভা নয়, রাজ্যের আরও যে ৯৩টি পুরসভা, যেখানে ভোট হওয়ার কথা ছিল, সেখানেও প্রশাসক বসানো হবে। এমনটাই জানিয়েছেন পুরমন্ত্রী। ইতিহাসে এমন ঘটনা এই প্রথমবারের মতো ঘটতে চলেছে।

Related Articles

Back to top button