সব খবর সবার আগে।

জলে ভাসিয়ে প্রতিমা নিরঞ্জন নয়, কলকাতার ঘাটে প্রথমবার নিরঞ্জনের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা কর্পোরেশনের

পুজোর শেষবেলা উপস্থিত। চারদিন মর্ত্যে কাটিয়ে এবার উমার কৈলাসে ফেরার পালা। প্রতিমা নিরঞ্জনের জন্য কলকাতার সমস্ত ঘাটে চলছে তুমুল প্রস্তুতি। কলকাতা পুলিশ থেকে শুরু করে কলকাতা কর্পোরেশন, গঙ্গার ঘাটগুলোতে নিরঞ্জনের ব্যবস্থায় কোনও খামতি রাখতে নারাজ উভয় পক্ষই।

কলকাতা কর্পোরেশনের তরফে এই প্রথমবার দই ঘাটে প্রতিমা নিরঞ্জনের জন্য বিকল্প এক ব্যবস্থা করা হয়েছে। এই বিকল্প ব্যবস্থা অনুযায়ী দুর্গা মূর্তি জলে না ভাসিয়েই নিরঞ্জন করা যাবে। এক্ষেত্রে গঙ্গা থেকে জল তোলা হবে। আর সেই জল হোস পাইপের সাহায্যে মূর্তির গায়ে ঢালা হবে।

প্রতিমা গলতে শুরু করলে সেই প্রতিমা গলা হল একটি রিজার্ভারে জমা করা হবে। এরপর ক্যানেলের মাধ্যেমে সেই জল ড্রেনে ফেলা হবে। গোটা প্রক্রিয়াটি এবার পরীক্ষামূলক ভাবে দই ঘাটে চালু করতে চলেছে কলকাতা কর্পোরেশন।

গোটা প্রক্রিয়াটি ভালোভাবে পরিদর্শন করেন কর্পোরেশনের প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেন, “মানুষের সহযোগিতা পেলে পরবর্তীকালে কলকাতার অন্যান্য ঘাটগুলোতেও এই পদ্ধতিতে প্রতিমা নিরঞ্জন শুরু হবে”।

এদিকে বাজা কদমতলা ঘাট, দই ঘাট, জাজেস ঘাট ও নিমতলা ঘাটে যথেষ্ট পরিমাণ পুলিশ মোতায়েন করা হচ্ছে। থাকবেন কর্পোরেশনের কর্মীরাও। প্রতিমা নিরঞ্জনের জন্য নির্দিষ্ট সংখ্যক সদস্যরাই শুধুমাত্র ঘাটে প্রবেশ করতে পারবেন। প্রত্যেক বছরের মতো এবছরও পুজোর ফুল ও সামগ্রী ফেলার জন্য নির্দিষ্ট জায়গা করা হয়েছে। জলপথে নজরদারি করবে রিভার ট্রাফিক পুলিস। এছাড়া ড্রোনের মাধ্যমেও নজরদারি চালানো হবে।

You might also like
Comments
Loading...