কলকাতা

জল ও বিদ্যুৎ-এর দাবিতে বিক্ষোভ! স্বাভাবিক হবে সাত দিনে, জানালেন মেয়র!

ঘূর্ণিঝড়ের ভয়াল কোপে লন্ডভন্ড তিলোত্তমা! বিপর্যস্ত জেলা!

বিপর্যয়ের প্রায় দুই দিন হতে চলল। এখনও মহানগরীর অনেক অংশ‌ই বিদ‍্যুৎহীন। নেই জলের যোগানও । ক্রমশই দুর্বিসহ হয়ে উঠছে পরিস্থিতি। আর তাতেই ভাঙছে ধৈর্য্যের বাঁধ। শহরের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে পাওয়া যাচ্ছে বিক্ষোভের খবর। কিন্তু এই মুহূর্তে পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে বিশেষ আশার কথাও শোনাতে পারছে না রাজ‍্য প্রশাসন।

মেয়র ফিরহাদ হাকিম বলেন যে আশা করা যায় সাতদিনের মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে। তিনি বলেন পুরকর্মী ও অন্যান্যরা সারাদিন অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন পরিস্থিতি ঠিক করার জন্য। অন্যদিকে এই পরিস্থিতি নিয়ে তৃণমূলকে একহাত নিয়েছে বিজেপি। দিলীপ ঘোষ বলেন মানুষের বিক্ষোভ প্রমাণ করে প্রত্যাশা পূর্ণ করতে ব্যর্থ হয়েছে শাসক দল। ফিরহাদ অবশ্য বলেন যে যেখানে প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর মধ্যে আলোচনা চলছে, সেখানে দিলীপ একটু কম কথা বললেই ভালো।

বেহালায় কিছু বিক্ষোভকারী সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদও করেন বলে জানা গিয়েছে। ওই এলাকার এক নাগরিক সংবাদসংস্থা পিটিআইকে জানান মোবাইল কানেকশন, ইলেকট্রিসিটি ও পানীয় জল ছাড়া বসে আছি। এটা কি রসিকতা হচ্ছে! তিনি বলেন যে মোবাইল কানেকশন না হলেও চলবে জল ও বিদ্যুৎ তো লাগবে। তাঁরা ন্যূনতম পরিষেবা টুকুই চাইছেন।
মধ্য কলকাতার এক বাসিন্দা বলেন যে গন্ধে টেকা যাচ্ছে না। পুরসভার হেল্পলাইনে ফোন করে পাওয়া যাচ্ছে না। সমস্ত ড্রেন আমফানের ফলে আটকে পড়েছে। হাকিম অবশ্য বলেন যে সিইএসসি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে। যতটা সম্ভব তাড়াতাড়ি বিদ্যুৎ পরিষেবা দেওয়ার চেষ্টা চলছে।

অন্যদিকে অজয়নগরে ইএম বাইপাস আটকে বিক্ষোভ করেন নাগরিকরা। তাঁদের প্রশ্ন, ২৫ শতাংশ মানুষের বাড়িতে আলো আছে। বাকিদের নেই। এটা কেমন বিচার! একই সঙ্গে পানীয় জলের অভাবের কথাও বলেন নাগরিকরা।
পৌরসভার হয়ে সাফাই গেয়ে মেয়র বলেন যে এমন সাইক্লোন আসবে কে জানত। পাঁচ হাজার গাছ পড়েছে। অনেক রাস্তা সাফ করা হয়েছে। পরিস্থিতি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক হতে এক সপ্তাহ লাগবে।

রাজ্যে আমফানে এখনও পর্যন্ত মৃত ৮৬। তারমধ্যে কলকাতায় ঝড়ের বলি ১৯।

Related Articles

Back to top button