সব খবর সবার আগে।

পুজোর আগে বৃষ্টির জেরে শহর জুড়ে ডেঙ্গির আতঙ্ক, নেপথ্যে শহরের জমা জল, ভয় জমছে শহরবাসীর মনে

জমা জলের জেরে ডেঙ্গি আতঙ্কের পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে শহর কলকাতায়। এই বিষয়ে উদবেসগ প্রকাশ করেছেন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসক মহল। আলিপুরের বেসরকারি হাসপাতালের জরুরী বিভাগ, বহির্বিভাগ ও হাসপাতাল চত্বরে গত দু’দিন ধরে জল জমে।

এই জল ঠেঙিয়ে রোগীকে জরুরী বিভাগে ভর্তি করতে বেশ সমস্যায় পড়তে হচ্ছে রোগীর পরিবারকে। কোনও প্রত্যন্ত এলাকা নয়, খাস শহর কলকাতাতেই নিকাশি ব্যবস্থার এমন পরিস্থিতি দেখে রীতিমতো শিউড়ে উঠছেন চিকিৎসক মহল।

চিকিৎসকের মতে, করোনার মধ্যেই ক্রমেই মাথাচাড়া দিচ্ছে ডেঙ্গির আতঙ্ক। ডেঙ্গির নতুন স্ট্রেন রাজস্থান, উত্তরপ্রদেশে রীতিমতো প্রাণঘাতী হয়ে উঠছে। এমন পরিস্থিতিতে হাসপাতাল চত্বরে এভাবে জল জমা থাকলে, তা থেকে মশার বংশবৃদ্ধি খুব একটা কঠিন নয়।

নানান স্বাস্থ্যকর্মী, চিকিৎসকের সঙ্গে একমত বেসরকারি হাসপাতালের চিফ অপারেটিং অফিসার সিমরদীপ গিল। তাঁর বক্তব্য, হাসপাতাল থেকেই যদি ডেঙ্গি ছড়ানোর পরিবেশ তৈরি হয়, তাহলে এর থেকে দুর্ভাগ্যজনক আর কিছু নেই। পুরসভার কাছে তিনি আর্জি জানিয়েছেন যাতে জমা জল দ্রুতই সরানোর ব্যবস্থা করা হয়।

গত দুদিনের টানা বৃষ্টিতে শহরের একাধিক এলাকা জলমগ্ন। টালিগঞ্জ থেকে শুরু করে সার্কুলার রোড, তারাতলা, ভবানীপুর, মিন্টো পার্ক, ক্যামাক স্ট্রিট জল থই থই। এদিকে ঠনঠনিয়া, ক্য়ামাক স্ট্রিট, মিন্টো পার্ক, ঠনঠনিয়া, কলেজ স্ট্রিট, সেক্টর ফাইভ, চিনার পার্ক, কাঁকুড়গাছি, কৈখালি সমস্ত এলাকা জলের তলায়।

গত সোমবার কার্যত সারা দিনই পাম্প চালিয়ে জল গঙ্গায় ফেলা হয়েছে। এদিকে বাড়তে শুরু করেছে গঙ্গায় জলের স্তরও। শহরের নিকাশি নালার জল কীভাবে গঙ্গা দিয়ে বের করবে, তা নিয়ে রীতিমতো হিমশিম কলকাতা পুর প্রশাসন। কিন্তু দ্রুত এই জল বের করার ব্যবস্থা না করলে এদিকে ডেঙ্গির সংক্রমণের ভয় পাচ্ছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা।

শহরের নানান জায়গার চিত্র সত্যিই ভয়ঙ্কর। একে তো করোনা, অজানা জ্বরের প্রকোপ, এর উপর দোসর হয়ে জুটেছে ডেঙ্গির আতঙ্ক। পুজোর আগে নতুন করে এই ডেঙ্গির আতঙ্ক ভয় ধরাচ্ছে শহরবাসীর মনে। এদিকে হাতছানি দিচ্ছে করোনার তৃতীয় ঢেউও। এর জেরে স্বাস্থ্য কর্তারা বেশ চিন্তায়।

আবার এদিকে, আগামী শনিবার নতুন করে আবারও উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণাবর্তের সৃষ্টি হবে। এই ঘূর্ণাবর্ত রবিবার ওড়িশা ও পশ্চিমবঙ্গ উপকূলের কাছে আসবে। এর জেরে উপকূলের জেলাগুলোতে ফের বৃষ্টি বাড়ার সম্ভাবনা। ফলে আবারও বৃষ্টির পূর্বাভাস থেকেই যাচ্ছে যা স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের চিন্তার ভাঁজ আরও বাড়িয়েছে।

You might also like
Comments
Loading...