সব খবর সবার আগে।

লাদাখ সীমান্তে উত্তেজনার আবহেই ডোকলামে বাড়ছে লাল ফৌজের আনাগোনা! ভুটান-চীন বন্ধুত্ব ভাবাচ্ছে ভারতকে।

গালওয়ান উপত‍্যকায় উত্তেজনার মাঝেই ফের ডোকলামে নজর ড্রাগনদের! বাড়ছে লালফৌজের টহলদারি। সিকিম সেক্টরে চোখ রাঙাচ্ছে লালফৌজ। প্রতিরক্ষা মন্ত্রক সূত্রে জানানো হয়েছে, গত দু’দিন আগে ডোকলাম মালভূমিতে রেইকি করে গিয়েছে চীনা সেনা। ভুটান সেনার আউটপোস্টে বেশ কিছুক্ষণ পর্যন্ত তাঁরা সময় কাটিয়েছে। ডোকলাম পর্যন্ত‌ও নাকি তাঁরা এগিয়ে আসে। তারপর সেখানকার ভূ-কৌশলগত ছবি তুলে নিয়ে যায় চীনারা। মিনিট তিরিশেক সময় ছিল তাঁরা। ডোকলাম সীমান্তে ৫-৬ জন পিএলএ জওয়ানকে ঘোরাঘুরি করতে দেখা গিয়েছিল বলে সূত্রের খবর।

উল্লেখ‍্য , ডোকলাম নিয়েই ২০১৭ সালের এই জুন মাসেই প্রথম ভারত-চীন সংঘাত শুরু হয়। সেইসময় টানা ৭২ দিন ভারত আর চীনের সেনা মুখোমুখি বসে ছিল। তারপর থেকে প্রতি মাসে এক-দুবার লালফৌজ ভুটান-চীন-ভারত সীমান্ত সংযোগকারী এই মালভূমিতে টহল দিয়ে যায়। দু-একদিন থাকে তারপর চলে যায়। মূলত ভুটান সেনার আউটপোস্টেই থাকে তাঁরা।

তবে এই নিয়ে ভারতের তরফে কোনও বাধা নেই। সেনা আধিকারিকদের কথায়, ডোকলামে ভারতীয় সেনাও টহল দেয়। আর তাই চীনা সেনাকে আটকানোর কোনও প্রশ্ন‌ই নেই। কিন্তু ডোকলামে যদি কোনও নির্মাণের মতলব থাকে চীনের তাহলে পরিস্থিতি বুঝে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

নেপালের সঙ্গে চীনের সম্পর্ক নিয়ে আগে থেকেই অসন্তুষ্ট ছিল বিদেশমন্ত্রক। কিন্তু ইদানীং আরেক প্রতিবেশি রাষ্ট্র ভুটানের সঙ্গে চীনের বন্ধুত্ব নিয়ে কিছুটা চিন্তায় ভারত। ভুটানের আউটপোস্ট গুলিতে আগে বছরভর সেনা থাকত না। ২০১৭ সালের ডোকলাম বিবাদ মাথাচাড়া দেওয়ার পর থেকে ভুটানের সেনাবাহিনী সেখানে কড়া প্রহরায় রয়েছে। ভুটান এখন চীনের ‘বাফার’ হিসাবে কাজ করছে কি না তা নিয়েও জোর চর্চা চলছে ভারতীয় সেনার অন্দরে। যে ৫-৬ জন চীনা সেনা ডোকলামের কৌশলগত ছবি তুলছিল, তাঁদের দেখে মালভুমির নিচে লালফৌজের অবস্থান রয়েছে কিনা তা খোঁজ রাখছে ভারতীয় সেনা। শিলিগুড়ি থেকে আকাশপথে ডোকলামের দূরত্ব মাত্র ২৭ কিমি। সুতরাং প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের মতে, ডোকলামে চীনের কার্যকলাপে কড়া নজর রাখতে হবে।

You might also like
Leave a Comment