সব খবর সবার আগে।

লাদাখে চীনের নাকের ডগা দিয়েই সমাপ্ত হলো বেইলি ব্রিজ বানানোর কাজ। কুর্নিশ ভারতীয় সেনা!

অবশেষে লাদাখে বড় সাফল‍্যের মুখ দেখল ভারতীয় সেনা। গালওয়ান নদীর উপর উঁচু খাড়া পাহাড়ের কোলে বেইলি ব্রিজ বা অস্থায়ী ব্রিজ বানানো শেষ করল ভারতীয় ইঞ্জিনিয়াররা। ওই অঞ্চলে সমতল জমি প্রায় নেই। খুব সংকীর্ণ গিরিখাত। ভরা গ্রীষ্মেও হিমাঙ্কের খুব কাছে থাকে তাপমাত্রা। প্রবল ঠান্ডা এবং চীনা হুমকি অগ্রাহ্য করেই সাফল্যের সঙ্গে ৬০ মিটার লম্বা এই বেইলি ব্রিজ বানাতে অবশেষে সক্ষম হলো ভারতীয় সেনা। এর ফলে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার খুব কাছে ভারতীয় সেনার ফরোয়ার্ড পোস্টগুলিতে ভারী যুদ্ধাস্ত্র, সামরিক সরঞ্জাম, রসদ, সেনা, যানবাহন সবই মসৃণভাবে যাতায়াত করতে পারবে। নদীখাতের উপর কয়েকটি কংক্রিটের পিলারের উপরের এই বেইলি ব্রিজটি বসানো হয়েছে।

বর্ডার রোডস অর্গানাইজেশনের পক্ষ থেকে সর্বতভাবে সাহায্য করা হয়েছে এই ব্রিজটি তৈরি করতে। চার লেনের এই ব্রিজটি গালওয়ান নদী ও শায়ক নদীর সংযোগস্থল থেকে তিন কিলোমিটার দূরে, ১৪ নম্বর পেট্রলিং পয়েন্টটি যেখানে ১৫ জুন রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছিল দুই দেশের সেনাদের মধ্যে, সেখান থেকে নয়া ব্রিজটি মাত্র ২ কিলোমিটার দূরে। শায়ক ও গালওয়ান, দুই নদী যেখানে মিশছে ঠিক সেখানেই রয়েছে ভারতীয় সেনার একটি বেস ক্যাম্প। নাম ‘১২০ কিলোমিটার বেস ক্যাম্প’। এই ক্যাম্পের সঙ্গে ভারতীয় সেনার বাকি ফরোয়ার্ড পোস্টগুলির মসৃণ যোগাযোগ রাখতে এই ব্রিজটি লাইফলাইন হিসাবে কাজ করবে। অন্যদিকে, দারবুক থেকে দৌলতি বেগ ওল্ডি পর্যন্ত ২৫৫ কিলোমিটার লম্বা রাস্তা তার কৌশলগত রক্ষাকবচ হিসাবেও এই ব্রিজটি বিশেষ ভাবে কাজ করবে। অর্থাৎ ওই রাস্তার কার্যকারিতা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে সদ্য নির্মিত ব্রিজটি। লাদাখের বিভিন্ন শৈলশিরা দিয়ে সেনা যানগুলি অস্থায়ী পথ তৈরি করে চলাচল করছে। সেনা শিবির গুলি দুর্গম এবং অনেক উঁচুতে রয়েছে। ফলে ক্রমে বাড়ছে ঝামেলা এবং ঝুঁকি। আর এই অসুবিধাই স্থায়ীভাবে প্রশমন করল বেইলি ব্রিজ। এমনটাই মত কৌশলগত বিশেষজ্ঞদের।

এই ব্রিজ তৈরির কর্মসূচি বাতিল করতে বার বার হুমকি দিয়েছিল চীনাফৌজ। সেনা পর্যায়ের বৈঠকেও তাঁরা ব্রিজ বন্ধ করার জন‍্য ভারতকে জানিয়েছিল। কিন্তু ভারত বিন্দুমাত্র এসবে তোয়াক্কা করেনি। লাল ফৌজের চোখ রাঙানি উপেক্ষা করেই গালওয়ানে ব্রিজ তৈরির কাজ শেষ করল বিআরও এবং সেনার ইঞ্জিনিয়াররা। চীনা সেনা ও চীনের বিদেশমন্ত্রকের বক্তব্য ছিল, ‘গোটা গালওয়ান নদী উপত্যকাটাই চীনের। সেখানে ভারতীয় সেনার ব্রিজ তৈরির চেষ্টা বেআইনি।’ যদিও ভারত আগেই এই দাবি খারিজ করে দিয়েছিল। এক ভারতীয় সেনা অফিসার জানিয়েছেন, “আমরা ঠিকই করেছিলাম, যুদ্ধ হলে হবে। কিন্তু নিজেদের জমিতে ব্রিজ তৈরির কাজ থামাব না। দরকার পড়লে এই এলাকায় আরও বেইলি ব্রিজ তৈরি হবে কংক্রিটের পিলার ফেলেই।”

You might also like
Leave a Comment