সব খবর সবার আগে।

দীর্ঘ ১১ মাস পর পূর্ব লাদাখ জুড়ে সেনা প্রত্যাহার! চীনা প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠক সারলেন ভারতের রাষ্ট্রদূত বিক্রম মিশ্রি

প্রায় এক বছরের কাছাকাছি হতে চলল ভারত চীন সেনা সংঘর্ষ। দীর্ঘ ১১ মাস ধরে একে অপরের মুখোমুখি বসে ছিল ভারত-চীন সেনা।‌

গালওয়ান সংঘর্ষের পর‌ই পরিস্থিতি সবচেয়ে জটিল হয়ে ওঠে প্যাংগং হ্রদ সংলগ্ন ফিঙ্গার এলাকাগুলিতে।

যুদ্ধ লাগতে লাগতে থেমে যায়। তবে দুই দেশের মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে লাগাতার চলে দুই পক্ষের আলোচনা। অবশেষে ফেব্রুয়ারি মাসে প্যাংগং থেকে ফৌজ সরিয়ে নিয়েছে দুই দেশ। এবার গোটা পূর্ব লাদাখ জুড়ে সেনা প্রত্যাহারের উদ্দেশ্যে চীনা প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠক সারলেন ভারতের রাষ্ট্রদূত বিক্রম মিশ্রি।

আরও পড়ুন–অটুট বন্ধুত্ব! পাকিস্তানের উপর চাপ বাড়িয়ে সন্ত্রাসবাদ ইস্যুতে ফের ভারতের পাশে আমেরিকা

সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে জানানো হয়েছে, শুক্রবার বেজিংয়ে চীনা ভাইস ফরেন মিনিস্টার লউ ঝাওহুইয়ের সঙ্গে বৈঠকে বসেন ভারতের রাষ্ট্রদূত।

আরও পড়ুন–টাকা কামাতে রাজনীতিতে আসিনি! শনিবারের আস্থা ভোটে হেরে গেলে মসনদ ছেড়ে দেবো! গদি বাঁচাতে আবেগী ইমরান 

সেই আলোচনায় পূর্ব লাদাখে সংঘাতের সমস্ত কেন্দ্রবিন্দু থেকে ফৌজ সরানো নিয়ে কথা হয় দুই পক্ষের মধ্যে। ফলে মনে করা হচ্ছে এবার গোগরা-হটস্প্রিং ও দেপসাং সমতলের একাংশ থেকেও সরে যেতে পারে লালফৌজ। প্যাংগং হ্রদ নিয়ে দীর্ঘদিন বিবাদ চলে ভারত-চিনের। দু’দেশের মধ্যে ৯ দফা আলোচনার পর গত মাসে সেনা প্রত্যাহার শুরু করে দু’দেশ। ‘পিপলস লিবারেশন আর্মি’ তাদের বিপুল সংখ্যক সেনা, শয়ে শয়ে ট্যাঙ্ক ও সাঁজোয়া গাড়ি, হাউৎজার সরিয়ে নিয়েছে। প্যাংগং হ্রদ লাগোয়া আট নম্বর ফিঙ্গার পয়েন্টের কাছে সরানো হয়েছে চিনের সব ট্যাঙ্ক, হাউৎজার কামান। তবে পরিস্থিতির উপর প্রতি মুহূর্তে কড়া নজর রাখছে ভারতীয় সেনার উপরমহল। সেই মতো পদক্ষেপ ও কৌশল বদলাচ্ছেন তাঁরাও। আর প্যাংগংয়ের পরই এবার অন্যান্য বিবদমান এলাকা নিয়ে আলোচনায় বসতে চলেছে দু’দেশ।

You might also like
Comments
Loading...