সব খবর সবার আগে।

নাগরিকত্ব আইন সংশোধন করবে নেপাল, ভারতের সঙ্গে ‘রোটি ও বেটি’ সম্পর্ক ঠেকতে চলেছে তলানিতে

এবার নাগরিকত্ব আইন সংশোধনের পথে হাঁটছে নেপাল। যার জেরে ভারতের সঙ্গে ‘রোটি ও বেটি’ র সম্পর্ক নষ্ট হতে পারে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। সূত্র মারফত জানা গিয়েছে যে নেপালের নতুন যে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন আসতে চলেছে সেখানে বলা হয়েছে যে কোন বিদেশি মহিলা যদি নেপালি কোন ব্যক্তিকে বিয়ে করেন তবে তাঁকে নেপালের নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য সাত বছর অপেক্ষা করতে হবে।

এমনিতেই নেপালের সঙ্গে ভারতের বরাবরই ভাল সম্পর্ক। কিন্তু বিগত কয়েকদিনে এই সম্পর্কে অনেক টানাপোড়েন দেখা দিয়েছে। ভারতের তিনটি অঞ্চলকে নেপাল নিজেদের দেশের মানচিত্রে অন্তর্ভুক্ত করে নতুন মানচিত্র প্রকাশ করে ফেলেছে। এরপর থেকেই ভারতের সঙ্গে নেপালের শুরু হয়েছে কূটনৈতিক ও রাজনৈতিক বিবাদ। এরপর এই নাগরিকত্ব আইন সংশোধনের কারণে ভারতের সঙ্গে নেপালের তিক্ততা আরও বাড়তে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা কারণ নেপালের সঙ্গে ভারতের সীমান্ত বিবাহ প্রথা এখনও বজায় আছে।

কী এই সীমান্ত বিবাহ প্রথা তা একটু জেনে নেওয়া যাক। দক্ষিণ নেপালে হিমালয়ের পাদদেশে তরাই অঞ্চলের বাসিন্দারা মাধেসি হিসেবে পরিচিত। যে এলাকার সঙ্গে ভারতের বিহারের সীমান্ত রয়েছে। এই অঞ্চলের নেপালি বাসিন্দাদের সাথে ভারতের বাসিন্দাদের বিবাহ সম্পর্ক বহুদিন আগে থেকেই প্রচলিত আছে। এখন সুপারিশ করা নাগরিকত্ব সংশোধন আইন যদি নেপালের সংসদে পাস হয়ে যায় তবে এই বিবাহ সম্পর্কে বাধা পড়তে পারে বলে মত নেপালের দুই প্রধান রাজনৈতিক দলের। এই দুই রাজনৈতিক দল নেপালি কংগ্রেস এবং জনতা সমাজবাদী পার্টির মতে, এরকম আইনের ফলে দীর্ঘদিন ধরে ভারতের সঙ্গে যে ‘রোটি এবং বেটির সম্পর্ক’ আছে, তাতেও প্রভাব পড়তে পারে। দু’দলই বিয়ের পরই নাগরিকত্ব প্রদানের পক্ষে মুখ খুলেছে।

রবিবার নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন সংসদে নথিভুক্ত করা হয়েছে। নতুন এই আইনে নেপালি পুরুষকে বিয়ে করার পর বিদেশী মহিলাদের যে ৭ বছর অপেক্ষা করার কথা বলা হয়েছে সেই সাত বছরে বিদেশে মহিলারা সাতটি অধিকার পাবেন। সূত্র উদ্ধৃত করে সংবাদসংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, তারা নেপালে বসবাসের ছাড়পত্রও পাবেন। একইসঙ্গে ব্যবসা করা, কোম্পানি, পড়াশোনার সুযোগও পাবেন।

যদিও স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে যে নেপালের মহিলা সংগঠনগুলির এই সংশোধনীর ব্যাপক সমালোচনা করেছে। তাদের বক্তব্য, যে সচিবালয়ে একজনও নারী নেই, সেখানে মহিলাদের জন্য এরকম বিল কী করে পাশ করা যেতে পারে? পাশাপাশি সংশোধনীতে বিদেশি পুরুষদের বিষয়ে কিছু বলা নেই। বর্তমানে নেপালি মহিলাকে বিয়ের পর নেপালের নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য কোনও বিদেশি ব্যক্তিকে ১৪ বছর অপেক্ষা করতে হয়। তাই মহিলা ও পুরুষদের ক্ষেত্রে আলাদা ব্যবস্থা সেটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া হবে না বলে জানিয়েছে মহিলা সংগঠনগুলি।

You might also like
Leave a Comment