সব খবর সবার আগে।

করোনা আবহেই হানা দিচ্ছে ক্যাট কে ভাইরাস! ভারতে আগাম সতর্কতা জারি আইসিএমআর-এর

করোনার পর চীনে হানা এক নতুন ভাইরাসের। আর্থ্রপ় বা সন্ধিপদ বিশিষ্ট প্রাণী বাহিত এই CQV ভাইরাস, যা জনসাধারণে ক্যাট কে ভাইরাস হিসেবেই পরিচিত। এর প্রকোপে জ্বর, মেনেঞ্জাইটিস ও শিশুদের এনসেফেলাইটিস দেখা দিতে পারে। সূত্রের খবর, চীন ও ভিয়েতনামে কিউলেক্স মশা (culex mosquitoes) ও শুয়োরের (pig) মাধ্যমেই ইতিমধ্যেই CQV ভাইরাস মানবদেহে সংক্রমিত হয়ে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে।

আর এবার চীন থেকে এই ভাইরাস ভারতে সংক্রমিত হওয়ার অশনিসংকেত দেখছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ (Indian council of medical researchIndian council of medical research) এর বিজ্ঞানীরা (scientist)। করোনা মহামারীর জেড়ে যেখানে অতিষ্ঠ প্রায় ভারতের দশা সেখানে আবার একটা মারাত্মক জীবাণু? কি করে সামাল দেবে ভারত? চিন্তায় বিজ্ঞানীরা।

ভারতে ইতিমধ্যেই কিউলেক্স মশার উপস্থিতি দেখে আগাম সতর্কতা জারি করেছে আইসিএমআর। পুনের এই প্রতিষ্ঠান ভারতজুড়ে করা সমীক্ষায় ৮৮৩টি মানব শরীর থেকে সংগৃহীত সেরাম নমুনার মধ্যে দুটিতে CQV ভাইরাসের অ্যান্টিবডি খুঁজে পেয়েছে। এর থেকে বোঝা গিয়েছে, ওই দুই ব্যক্তি কোনও সময়ে এই ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হয়েছিলেন। তবে ওই দুটি বাদে অন্য কোনও নমুনা বিশ্লেষণ করে মানব বা পশুর শরীরে এই ভাইরাস পাওয়া যায়নি।

যথাক্রমে ২০১৪ ও ২০১৭ সালে কর্নাটক থেকে সংগ্রহ করা ওই দুই নমুনায় CQV ভাইরাসের অ্যান্টিবডির উপস্থিতি পাওয়া গিয়েছে। তবে এই বিষয়ে নিশ্চিত হতে গেলে আরও বেশ কিছু পরিমাণে মানুষ ও শুয়োরের সেরাম নমুনা পরীক্ষা করা দরকার বলে মনে করছেন আইসিএমআর-এর বিজ্ঞানীরা। সম্প্রতি এই গবেষণাপত্রটি ইন্ডিয়ান জার্নাল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ-এ (IJMR) প্রকাশিত হয়েছে।

একই সঙ্গে অন্য দিকে, চিনে পালিত শুয়োরের রক্তে CQV ভাইরাসের উপস্থিতি প্রায়ই দেখা গিয়েছে বলে তাঁরা জানিয়েছেন।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...
Share