দেশ

রাতারাতি খুলে গেল ভাগ্যের চাবিকাঠি, লটারির টিকিট কাটার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ২৫ কোটি টাকা জিতলেন অটোচালক, একলাফে কোটিপতি

কার ভাগ্যে যে কী লেখা রয়েছে, তা সত্যিই কেউ বলতে পারে না। কখন কার ভাগ্যের চাবিকাঠি খুলে ভাগ্যের দরজা খুলে যায়, তা কেবল উপরওয়ালাই জানেন। এই যেমন কেরালার এক অটোচালক লটারির জিতে রাতারাতি হয়ে গেলেন ২৫ কোটি টাকার মালিক। গত শনিবার ওই লটারির টিকিট কেনার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ভাগ্য বদলে গেল তাঁর। এক লাফে হয়ে গেলেন কোটিপতি।

গত শনিবার কেরালার তিরুঅনন্তপুরমের বাসিন্দা অনুপ বি তিরুভনম বাম্পার লটারির টিকিট কিনেছিলেন। তাঁর টিকিটের নম্বর ছিল TJ750605। টিকিট কেনার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই অনুপ জানতে পারেন যে তিনি ২৫ কোটির পুরষ্কার মূল্য জিতেছেন। এই বিষয়ে অনুপ বলেন, “মালেশিয়া যাওয়ার পরিকল্পনা করছিলাম। ওখানে হোটেলে রান্নার কাজ করতে চাই। এর জন্য টাকার প্রয়োজন ছিল। আগু পিছু না ভেবেই লটারির টিকিট কিনেছিলাম। বিপুল টাকা জিতে যাব এটা ভাবিনি”।

কেরালার এই অটোচালক অনুপ নিয়মিত লটারির টিকিট কেনেন বলে জানা গিয়েছে। এর আগেও লটারি জিতেছেন তিনি। তবে এত বিপুল অঙ্কের পুরস্কার মূল্য কখনও এর আগে পান নি তিনি। এবার টাকার চেক হাতে পাওয়ার পর অনুপ বলেন, “লটারি আমার ভাগ্য খুলে দিয়েছে। এই টাকা দিয়ে ধার শোধ করব”। তিনি জানান যে ভবিষ্যতে আবারও লটারির টিকিট কিনবেন তিনি।

লটারিতে একবারে ২৫ কোটি টাকা পেয়ে যাওয়া খুশি অনুপের স্ত্রী মায়াও। তিনি এই বিষয়ে বলেন, “আমরা ৩ লাখ টাকা ঋণের জন্য ব্যাঙ্কের কাছে আবেদন করেছিলাম। কিন্তু সেই আবেদন নিয়ে এখনও কিছু জানায়নি ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ। এই টাকা পেয়ে যাওয়ায় ওই ঋণের আর প্রয়োজন হবে না”।

লটারি জেতার পর এবার কবে তিনি মালয়েশিয়া যাবেন, তা এখনও জানান নি অনুপ। বলে রাখি, এই লটারির মাধ্যমে প্রায় ৩০০ কোটি টাকা আয় করেছে কেরালা সরকার। এই লটারির টিকিটের দাম ছিল ৫০০ তাকাস। দ্বিতীয় পুরস্কার যিনি জিতেছেন, তিনি পেয়েছেন ৫ কোটি টাকা। আর লটারিতে তৃতীয় স্থানাধিকারী ব্যক্তি পেয়েছেন এক কোটি টাকা।

Related Articles

Back to top button