দেশ

বামশাসিত কেরালাতে বিচার পেলেন না সন্ন্যাসিনী, দীর্ঘদিন ধরে নারকীয় ধর্ষণ করার পরও বেকসুর খালাস বিশপ ফ্রাঙ্কো মুলাক্কাল

নারকীয় পাপ করেও কোনও শাস্তি পেলেন না বিশপ ফ্রাঙ্কো মুলাক্কাল। আজ, শুক্রবার কেরালা আদালত তাকে বেকসুর খালাস করে। কোট্টায়ামের অতিরিক্ত দায়ার আদালতের বিচারক জি গোপাকুমার বিশপকে নির্দোষ বলে ঘোষণা করেন। এক ৪৪ বছর বয়সী সন্ন্যাসিনীকে দীর্ঘদিন ধরে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছিল বিশপের বিরুদ্ধে।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, ২০১৮ সালে কুরাভিলাঙ্গার পুলিশ এক সন্ন্যাসিনীর অভিযোগের ভিত্তিতে বিশপ ফ্রাঙ্কো মুলাক্কালের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। সেই সন্ন্যাসিনী অভিযোগ করেছিলেন যে ২০১৪ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে বিশপ তাঁকে মিশনারিজ অফ জেসাস কনভেন্টে একাধিকবার ধর্ষণ করেছেন।

সন্ন্যাসিনীর এমন অভিযোগের পর তাঁর পাশে দাঁড়ান ওই কনভেন্টের অন্যান্য সন্ন্যাসিনীরাও। বিশপের বিরুদ্ধে গর্জে ওঠেন তারা। তারা দিল্লি ভ্যাটিকান অ্যাম্বাসাডার জিয়াম্বাটিস্তা ডিকোয়াট্রো ও পোপকে অনুরোধ জানান যাতে বিশপ ফ্রাঙ্কো মুলাক্কালকে তাঁর পদ থেকে অপসারিত করা হয়।

২০১৮ সালে জিজ্ঞাসবাদের জন্য বিশপকে আটক করে পুলিশ। এরপর তাঁকে আইনি হেফাজতে নেওয়া হয়। প্রতিবাদী সন্ন্যাসিনীরা জানান যে বিশপের বিরুদ্ধে এমন অনেক অভিযোগ এর আগেও করা হয়েছে, কিন্তু কর্তৃপক্ষের তরফে কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

তবে বিশপ এই সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন। তাঁর কথায়, এই অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। বিশপের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৪২, ৩৭৬ ও ৫০৬ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়।

কিন্তু সেই মামলাতেই আজ বিশপকে বেকসুর খালাস করল কেরালা আদালত। আদালতের এই শুনে স্তম্ভিত জাতীয় মহিলা কমিশনের চেয়ারম্যান রেখা শর্মা। তাঁর মতে, ওই সন্ন্যাসিনীর অবশ্যই হাইকোর্টে আবেদন করা উচিত।

টুইট করে তিনি লেখেন, “ওই নির্যাতিতা সন্ন্যাসিনীর অবশ্যই হাইকোর্টে যাওয়া উচিত। জাতীয় মহিলা কমিশন তাঁকে সঠিক বিচার পাইয়ে দেওয়ার জন্য সবসময় তাঁর পাশে রয়েছে”।

Related Articles

Back to top button