দেশ

আমেরিকার পর হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন চেয়ে মোদীকে চিঠি লিখলেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

সম্প্রতি আমেরিকাকে প্রায় ৩ কোটি হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন পাঠিয়ে সাহায্য করেছে মোদী সরকার। তাই দেখে এবার হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন চেয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি পাঠালেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জেয়ার বোলসোনারো।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ সমস্যার মোকাবিলায় এখন এই ওষুধের ওপরই ভরসা করচ্ছে সারা পৃথিবী। কারণ করোনার ওষুধ এখনো অবধি আবিষ্কার হয়নি এবং বিশেষজ্ঞদের মতে তা বেশ সময় সাপেক্ষ। তাই এই ম্যালেরিয়ার প্রতিষেধকই দেওয়া হচ্ছে রোগীদের। তাতে বেশ ইতিবাচক ফলই মিলেছে। তাই এই ওষুধ এখন ভারতের থেকে সবাই আমদানী করতে চাইছে।

কিছুদিন আগেই মোদি ও বোলসোনারোর মধ্যে করোনাভাইরাস নিয়ে টেলিফোনে কথা হয়েছিল। কীভাবে কোভিড ১৯ এর যৌথ ভাবে মোকাবিলা করবে ভারত ও ব্রাজিল সেই নিয়ে আলোচনা করেছেন। এবার ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট সেই ওষুধ সরবরাহে মোদির সাহায্য চাইলেন। আর সেজন্য তিনি টেনে আনলেন রামায়ণের হনুমানের প্রসঙ্গ।

হনুমান জয়ন্তীতে লেখা চিঠিতে তিনি তাঁর দেশে হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন পাঠানোর সঙ্গে রামায়ণে লক্ষণের জীবন বাঁচাতে হনুমানের সঞ্জীবনী বুটি নিয়ে আসার তুলনাও করেন। তিনি লেখেন হনুমান রামের ভাই লক্ষণের প্রাণ বাঁচাতে সঞ্জীবনী ওষুধ নিয়ে এসেছিলেন, অন্যদিকে যিশু যেমন অসুস্থ, দুর্বল, রোগীর কষ্ট দূর করেছিলেন সেভাবেই মানুষের স্বার্থে ভারত ও ব্রাজিল এই সংকটময় পরিস্থিতির মোকাবিলা করবে।

প্রসঙ্গত, এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভারতকে হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন পাঠানো নিয়ে হুমকি দেন এবং রপ্তানির নিষেধাজ্ঞা না তুললে ভারতকে প্রত্যাঘাত করা হবে বলে হুঁশিয়ারিও দেন। তারপরই ভারত আংশিক হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়, এবং মানুষের স্বার্থে প্রতিবেশী দেশগুলোকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়।

সরকারি কর্তারা বলেছেন, যেসব দেশ ইতিমধ্যেই সরবরাহের অর্ডার পাঠিয়েছে, ঘরোয়া চাহিদা মেটানোর পর যা বাড়তি থাকবে তা তাদের সাহায্যে রপ্তানি করবে ভারত।

Related Articles

Back to top button