সব খবর সবার আগে।

করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের খুব সহজে কয়েক সেকেন্ডেই চিহ্নিত করবে ভারতে তৈরি নতুন যন্ত্র

ক্রমশ চোখ রাঙাচ্ছে করোনা। প্রতিদিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ। দেশে এখন দৈনিক সংক্রমণের হার আড়াই লক্ষ ছাড়িয়েছে। পরিস্থিতি যে খুবই ভয়ানক, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

সংক্রমণ রোখার অনেক উপায় অবলম্বন করা হলেও এই মারণ ভাইরাসকে কাবু করা খুব মুশকিল। যেভাবে দ্রুতহারে সংক্রমণ বাড়ছে তাতে আপনি নিজে করোনায় আক্রান্ত কী না, এবার তা জানা হবে খুব সহজেই। মানুষের হাতের তালুর সাইজের একটি যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন চেন্নাইয়ের কে জে হাসপাতালের একদল গবেষক ও স্নাতকোত্তর গবেষকরা।

আরও পড়ুন- করোনার কোপে এবার রেল, ২৯টি লোকাল ট্রেন বাতিল শিয়ালদহ শাখায়

জানা গিয়েছে, মাত্র কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে রক্তের চাপ, প্রেসার, অক্সিজেনের স্যাচুরেশন, শরীরের তাপমাত্রা এবং কোনও ব্যক্তির শরীরে করোনার জীবাণু রয়েছে কি না তা বলে দেবে নয়া এই মেশিন।

এই যন্ত্রটি তাঁরা সফল ভাবে আবিষ্কার এবং প্রদর্শন করে দেখিয়েছেন। এই মেশিনটি জীবিত মানব দেহের মোট তাপমাত্রার ২৩ থেকে ২৫ মিলি ভোল্ট পরিমাপ করতে সক্ষম। তবে গবেষকদের মতে ভাইরাসের দ্বারা সংক্রামিত রোগীদের শরীরের তাপমাত্রার রিডিং দেখাবে ২০ থেকে ২২ মিলি ভোল্ট। তবে কোনও ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত হলে এই মেশিনের সাহায্যে তাঁর শরীরের তাপমাত্রার রিডিং দেখাবে ৫ থেকে ১৫ মিলি ভোল্ট।

এই মেশিনের সেন্সরগুলি রক্তের অক্সিজেনের কম স্যাচুরেশন এবং শরীরের স্বাভাবিক তাপমাত্রা (জ্বর) ছাড়াও রক্তের কম কোষ (ডাব্লুবিসি), লোহিত রক্তকণিকা (আরবিসি) এবং প্লেটলেট গণনা, রক্তচাপ শনাক্ত করতে সক্ষম হবে।

এই বিষয়ে ওই গবেষক দলটি আরও জানিয়েছেন যে, এই গবেষণাটি তাঁরা ক্যান্সার রোগীদের উপর চালিয়েছিলেন। গবেষণা শেষে দেখা গিয়েছে ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীদের শরীরে এটি ৬৮ এমভি পর্যন্ত দেখায়। যা শরীরের উচ্চ তাপমাত্রা এবং কোষগুলির দ্রুত গুণকে নির্দেশ করে।

আরও পড়ুন- ভারতী ঘোষের রোড শো-তে ‘লুঙ্গিবাহিনী’-র হামলা, পুলিশের সামনেই বিজেপি কর্মীদের মারধরের অভিযোগ

এই যন্ত্রটি তৈরি করতে প্রায় ১৫ মাস সময় লাগলেও এর ব্যয় তুলনামূলক ভাবে অনেক কম। এই বিষয়ে কে. জে হাসপাতালের গবেষকরা জানিয়েছেন একটি যন্ত্র তৈরি করতে মাত্র ১০,০০০ টাকা খরচ হয়েছে। ফলে এই মেশিন উৎপাদনকারী সংস্থাগুলি অনেক কম খরচে এই যন্ত্র তৈরি করতে পারবেন এবং তা বাজারজাত করতে পারবেন।

You might also like
Comments
Loading...