দেশ

৬ ঘণ্টার ম্যারাথন জেরা, তদন্তে সহযোগিতা করেন নি সঞ্জয় রাউত, আর্থিক কেলেঙ্কারির জেরে এবার শিবসেনা নেতাকে গ্রেফতার ইডি-র

কিছুদিন আগেই মহারাষ্ট্রের (Maharashtra) রাজনীতিতে বড়সড় পরিবর্তন ঘটেছে। উদ্ধব ঠাকরের সরকারের অবসান ঘটিয়ে সে রাজ্যে সরকার প্রতিষ্ঠা করেছে একনাথ শিন্ডে-বিজেপি (Eknath Shinde-BJP)। এসবের মধ্যেই গতকাল উদ্ধব ঠাকরের (Uddhav Thackaray) সতীর্থ সঞ্জয় রাউতের (Sanjay Raut) বাড়িতে হানা দেয় ইডি (Enforcement Directorate)। দীর্ঘক্ষণ জেরার পর অবশেষে গ্রেফতার করা হয় তাঁকে।

বিগত বেশ কিছুদিন ধরেই বেআইনিভাবে আর্থিক লেনদেনের অভিযোগে সঞ্জয় রাউতের বিরুদ্ধে তদন্ত করে চলেছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। বেআইনি আর্থিক লেনদেনের বিষয়ে এর আগে সঞ্জয় রাউতকে সমন পাঠায় ইডি। তিনি প্রথমবার হাজিরা দিলেও পরবর্তীতে ফের সমন পাঠালেও তিনি আর হাজিরা দেন নি।  

এর জেরে গতকাল, রবিবার সঞ্জয় রাউতের বাড়িতে হানা দেয় ইডি। এই সময় তাঁর বাড়ি থেকে সাড়ে ১১ লক্ষ টাকা উদ্ধার করে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। এর সঙ্গে মেলে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ নথিও। এরপর আটক করা হয় সঞ্জয় রাউতকে। দীর্ঘ প্রায় ৬ ঘণ্টা ধরে জিজ্ঞাসাবাদের পর শেষ পর্যন্ত সোমবার ভোররাতে গ্রেফতার করা হল শিবসেনা নেতাকে।

গতকাল, রবিবার যখন ইডি সঞ্জয় রাউতের বাড়িতে পৌঁছয়, সেই সময় তাঁর বাড়ির বাইরে শিবসেনা কর্মীরা বিক্ষোভ দেখান। কিন্তু এই বিরোধিতা ধোপে টেকেনি। শিবসেনা নেতা গ্রেফতারের পর এই ঘটনাকে বিজেপির ‘ষড়যন্ত্র’ বলে কটাক্ষ করেছে শিবসেনা।

বলে রাখি, মুম্বইয়ের অন্তর্গত পত্র চাউল নামের একটি আবাসন প্রকল্পে আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। সেই আর্থিক দুর্নীতিতেই নাম জড়ায় শিবসেনা নেতার। ইডি-র সন্দেহ এই ক্ষেত্রে বড়সড় এক আর্থিক কেলেঙ্কারি হয়েছে। আর সেই কারণেই ১লা জুলাই প্রথম ইডি-র তরফে সমন পাঠানো হয়ে সঞ্জয় রাউতকে।

জানা গিয়েছে, প্রথমবার সমনে সাড়া দিয়ে ইডির দফতরে হাজিরা দিয়েছিলেন সঞ্জয় রাউত। তিনি আশ্বাসও দিয়েছিলেন যে তদন্তে তিনি কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাকে সহযোগিতা করবেন। কিন্তু পরবর্তীতে আর সেকথা রাখেন নি শিবসেনা নেতা। এরপরও এই মামলায় তাঁকে দু’বার সমন পাঠানো হয়েছে। কিন্তু প্রতিবারই নানান কাজের অজুহাতে তিনি সেই হাজিরা এড়িয়ে গিয়েছেন।

গতকাল ইডির জেরার মাঝেই একের পর এক টুইট করতে থাকেন সঞ্জয় রাউত। একটি টুইটে তিনি লেখেন, “বালাসাহেব ঠাকরের নামে শপথ নিয়ে আমি বলছি যে, কোন দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত নই। আমি মরে গেলেও শিবসেনা ছাড়বো না”।  আবার অন্য একটি টুইটে শিবসেনা নেতা লেখেন, “মিথ্যে তথ্য, মিথ্যে পদক্ষেপ। যদি মরে যাই, তা সত্ত্বেও আমি আত্মসমর্পণ করব না”।

Related Articles

Back to top button