দেশ

পাক গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই ও LTTE-এর মিলিত কারসাজিতেই বিপিন রাওয়াতের হেলিকপ্টার দুর্ঘটনা ঘটেছে, দাবী প্রাক্তন ব্রিগেডিয়ারের

গত বুধবার ছিল গোটা দেশের কাছে বড় শোক পাওয়ার মতো দিন। এদিন তামিলনাড়ুর কুন্নুরে হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান ভারতের প্রথম প্রতিরক্ষা সর্বাধিনায়ক বিপিন রাওয়াত। নিজের দীর্ঘ কর্মজীবনে নানান অপারেশনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তিনি। নানান জঙ্গি অপারেশন থেকে শুরু করে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক, এয়ার স্ট্রাইক, সব ক্ষেত্রেই তাঁর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল।

এই মানুষটির মৃত্যু সংবাদ এক গভীর শোক বয়ে আনে গোটা দেশে। গোটা দেশজুড়ে শোকের ছায়া নেমে আসে। এই হেলিকপ্টার দুর্ঘটনা নিয়ে তদন্ত চলছে। তবে এরই মধ্যে এই পরিস্থিতিতে অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার সুধীর সাওয়ান্ত এক চাঞ্চল্যকর দাবী করেছেন, যা জাতীয় স্তরে বেশ উত্তেজনা ছড়িয়েছে।

প্রাক্তন ব্রিগেডিয়ার সুধীর সাওয়ান্তের মতে, “LTTE-র কারসাজিতে তামিলনাড়ুতে সিডিএস হেলিকপ্টারে এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে যায়। এই দলে প্রচুর মানুষ রয়েছে এবং এরা বোমা বানানোর দিক থেকে ভীষণ দক্ষ”।

অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার সুধীর সাওয়ান্ত জানান, “যে স্থানে সিডিএস জেনারেল বিপিন রাওয়াতের কপ্টারটি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে, সেই এলাকাটা ছিল LTTE-র শক্ত ঘাঁটি। সেখানকার কিছু সাধারণ মানুষও আবার তাঁদেরই সমর্থক। আর এই হেলিকপ্টারটিতে যেভাবে দুর্ঘটনা ঘটে, তার সঙ্গে LTTE-র শৈলীর অনেক মিল রয়েছে। অনেক দিন ধরেই ভারতের সেনাবাহিনীর উপর তাঁরা ক্ষিপ্ত রয়েছে। এটা হতেই পারে পাকিস্তানি গোয়ান্দা সংস্থা ISI এবং LTTE মিলিতভাবে এই কপ্টার দুর্ঘটনা ঘটিয়েছে”।

ব্রিগেডিয়ার সুধীর সাওয়ান্ত LTTE-র বিষয়ে বলেন, “LTTE-র কাছে নানাধরনের আধুনিক মানের অস্ত্র শস্ত্র রয়েছে। আর এরা বোমা তৈরির দিক থেকে দক্ষ। এরাই প্রথম মানব বোমা বানিয়েছিল। হেলিকপ্টারে বোমা স্থাপন অসম্ভব হলেও, এটা ভেতরের কোন কাজও হতে পারে। যেভাবে কপ্টারটিতে দুর্ঘটনা ঘটেছে, তা LTTE-র দুজন সদস্যই করে ফেলতে পারে, ওদের বড় ক্যাডারেরও প্রয়োজন নেই”।

Related Articles

Back to top button