সব খবর সবার আগে।

হায়দারাবাদ পুরনিগমের নির্বাচনে বিজেপি ঝড়ের সামনে নিজাম গড় বাঁচাতে জোর লড়াই AIMIM সুপ্রিমো ওয়েইসির!

বর্তমান ভারতীয় রাজনীতিতে অন্যতম উদীয়মান রাজনৈতিক দল আসাউদ্দিন ওয়েইসির AIMIM। সদ্য বিগত বিহার ভোটে মিমের ফলাফল দেখে তা এককথায় মেনে নিতে বাধ্য দেশের তাবড় রাজনৈতিক দলগুলি। মিমের প্রধান গড় হচ্ছে হায়দরাবাদ।

নিজাম রাজ্যের এই সংখ্যালঘু সম্প্রদায় ভিত্তিক দল দেশে মুসলমান ভোট কাটতে বেশ ভালো কাজ করছে। আর তাই এবার জমজমাট বৃহৎ হায়দরাবাদ পুরনিগমের নির্বাচন। এই নির্বাচন যে এত গ্ল্যামারাস হতে পারে তা বোধহয় আগে ভাবেনি নিজাম প্রদেশের লোকজন। হায়দারাবাদে ভালো ফল করতে এবার উঠে পড়ে লেগেছিল বিজেপি।

AIMIM প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়েইসির খাসতালুকে মাসাধিক কাল ধরে চলা প্রচারপর্বে দুই যুযুধান শিবির একে অপরকে কটাক্ষ, পাল্টা কটাক্ষের রাজনীতিতে রক্তাক্ত করেছে।
আর যথারীতি ভারতীয় রাজনীতিকদের বদভ্যাস অনুযায়ী বারংবার পার হয়েছে শালীনতার সীমা।

১৫০ আসনের বৃহৎ হায়দরাবাদ পুরনিগমে মোট ভোটার প্রায় ৭৪ লক্ষ।
আজ সকাল থেকেই সম্পূর্ণ করোনাবিধি মেনে শান্তিপূর্ণভাবেবে চলছে ভোটগ্রহণ। সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চলবে। কাশ্মীর ভোটের মতোই শেষ এক ঘন্টায় ভোট দিতে পারবেন করোনা আক্রান্তরা।

গত বৃহৎ হায়দরাবাদ পুরনিগমের ভোটে তেলেঙ্গানার শাসক টিআরএস ৯৯টি এবং আসাদউদ্দিন ওয়েইসির AIMIM ৪৪টি আসন পেয়েছিল। বিজেপি-টিডিপি জোট পেয়েছিল মাত্র ৪টি আসন।

দুটি আসন দখল করতে পেরেছিল কংগ্রেস। কিন্তু এবারে ছবি অন্য। বিজেপি প্রায় সর্বশক্তি দিয়ে ঝাঁপিয়েছে এই পুরনিগম দখল করতে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ছাড়াও বিজেপির শীর্ষস্তরের সব নেতাই প্রচার সেরে ফেলেছেন হায়দরাবাদে। তেলেঙ্গানা রাজ্য বিজেপির সভাপতি বান্দি সঞ্জয় সিং বেশ কিছুদিন চার মিনারের শহরে ঘাঁটি গেড়ে বসে ছিলেন। বিজেপি যুব মোর্চার সভাপতি তেজস্বী সূর্য প্রচারে গিয়ে হায়দরাবাদকে রোহিঙ্গা এবং পাকিস্তানি অনুপ্রবেশকারীদের আস্তানা বলে তোপ দেগে এসেছেন।

খোদ বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডা প্রচারে গিয়ে হায়দরাবাদ দখলের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাস ব্যক্ত করে এসেছেন। উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ভোটে জিতলে হায়দরাবাদের নাম বদলে ফেলার ইঙ্গিত দিয়েছেন। এবং সর্বোপরি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আমিত শাহ শেষবেলায় হায়দরাবাদকে ‘নিজাম সংস্কৃতি’ মুক্ত করে বিশ্বমানের আইটি হাব হিসেবে গড়ে তোলার প্রতিশ্রুতি দিয়ে এসেছেন।

বিজেপির প্রায় সব শীর্ষনেতার প্রবল আক্রমনের মুখে গড় বাঁচাতে তাই তীব্র লড়তে হচ্ছে AIMIM সুপ্রিমো ওয়েইসিকে। তবে, বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আছে তেলেঙ্গানার শাসকদল টিআরএসও। তিন শিবিরের ধুন্ধুমার লড়াইয়ে কংগ্রেস প্রান্তিক শক্তি।

You might also like
Comments
Loading...