দেশ

‘পঞ্জাবে প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তায় গাফিলতি পূর্বপরিকল্পিত, মোদীকে হত্যা করার ষড়যন্ত্র কংগ্রেস হাইকম্যান্ড ও চান্নির’, বিস্ফোরক দাবী হিমন্তের

পঞ্জাবের ফিরোজপুরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নিরাপত্তায় গাফিলতি হয়। এই ঘটনায় এবার এক বিস্ফোরক দাবী করলেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। এই ঘটনায় তিনি সরাসরি কংগ্রেস হাইকম্যান্ড ও পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী চরণজিত চান্নির দিকে আঙুল তোলেন।

গতকাল, বুধবার হিমন্ত এক সাংবাদিক সম্মেলনে এই বিষয়ে অভিযোগ করে বলেন, “কংগ্রেস হাইকমান্ড ও পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী মিলে প্রধানমন্ত্রীকে হত্যা করার ষড়যন্ত্র করেছিলেন”।

হিমন্তের অভিযোগ, মোদীর কনভয় আটকালে যে বিক্ষোভ দেখানো হবে, তা পঞ্জাব পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তারা আগের থেকেই জানতেন। এক স্টিং অপারেশনকে উদ্ধৃত করে হিমন্ত বলেন, “পঞ্জাব সিআইডির ডিএসপি সুখদেব সিংকে স্পষ্ট ভাবে এক সিনিয়র এসএসপিকে বলতে শোনা যাচ্ছে এই ষড়যন্ত্রের বিষয়ে। এই আলোচনা হয়েছিল ২ জানুয়ারি। আর প্রধানমন্ত্রীর কনভয়ের পথ আটকে বিক্ষোভের ঘটনা ঘটেছিল ৫ জানুয়ারি। এর অনেক আগেই এই সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য পুলিশকে দেওয়া ছিল”।

এদিন হিমন্ত বিশ্ব শর্মা আরও বলেন, “এই বিক্ষোভ কোনও কৃষকদের ছিল না। খালিস্তানিরা এই বিক্ষোভ করছিল। সব তথ্য ও প্রমাণ থেকে এটা স্পষ্ট যে কংগ্রেস হাইকমান্ড ও পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে হত্যা করার ষড়যন্ত্র করেছিল”। শুধু তাই-ই নয়, এই ঘটনায় যাতে পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী চরণজিত চান্নিকে গ্রেফতার করা হয়, এমন অভিযোগও তোলেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী।

হিমন্তের এমন দাবীর সঙ্গে সহমত পোষণ করেছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। তাঁরও দাবী, পঞ্জাবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নিরাপত্তায় যে গাফিলতি ছিল, তা আসলে পূর্বপরিকল্পিত।

এক জনসভায় যোগী বলেন, “পঞ্জাব সফরের সময় প্রধানমন্ত্রী মোদীর নিরাপত্তায় গাফিলতি পূর্ব পরিকল্পিত স্পনসরড ষড়যন্ত্র ছিল। পঞ্জাব সরকার প্রটোকল মানেনি। সেখানে ড্রোন বা কোনও হামলা হতে পারত। কিন্তু তারা সেই সব সম্ভাবনা উপেক্ষা করে। কংগ্রেসের উচিত দেশের কাছে ক্ষমা চাওয়া”।

Related Articles

Back to top button