দেশ

মোদি সরকারের ঘোষিত স্কিম এর মাধ্যমে এবার প্রতি মাসে পাবেন বিপুল টাকা

করোনা মহামারীর আবহকালে দেশের বহু মানুষ তাদের রোজগার হারিয়েছেন।এমতাবস্থায় লকডাউন এর সময়ের কথা মাথায় রেখে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জনস্বার্থে একাধিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এবার আরো একটি নতুন স্কিম-এর কথা ঘোষণা করে প্রধানমন্ত্রী আবারও প্রমাণ করলেন তিনি মানুষের পাশে আছেন দুঃসময়ে। ভারতে মূলত অধিকাংশ পরিবারে শুধুমাত্র পুরুষেরা রোজগার করেন এবং অধিকাংশ স্ত্রীরাই হোমমেকার। কিন্তু বর্তমানে করোনা আবহে মূল্যবৃদ্ধির কারণে একজনের পক্ষে সংসার চালানো বেশ কষ্টকর, সেই কথা মাথায় রেখেই নতুন স্কিম ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর।

কি আছে এই নতুন স্কিমে? জেনে নেওয়া যাক। মোদি সরকারের তরফ থেকে এই স্কিমের নাম দেওয়া হয়েছে ‘National Pension Scheme’। এই স্কিমে যদি কেউ টাকা রাখেন তাহলে রোজগারের সাথে সাথে আপনার স্ত্রীও আত্মনির্ভর হয়ে উঠবে। এই স্কিমে টাকা জমা করার জন্য প্রথমে আপনার স্ত্রীর নামে একটি নতুন অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। এরপর আপনার স্ত্রীও টাকা জমা করতে পারবেন এই স্কিমে। এছাড়াও এই স্কিম এর দ্বারা আপনার স্ত্রীও আয় করতে পারবেন আপনার অনুপস্থিতিতে।

এই স্কিমে টাকা জমা করলে অ্যাকাউন্ট হোল্ডারকে প্রত্যেক মাসে বা বছরে টাকা জমা দিতে হবে। ১০০০ টাকা দিয়ে এনপিএস-এ আপনার স্ত্রীর নামে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। যখনই অ্যাকাউন্ট হোল্ডার এর বয়স ৬০ বছর হবে তখনই অ্যাকাউন্টটি ম্যাচিউরিটি হয়ে যাবে। তখন ওই অ্যাকাউন্টে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে পেনশন দেওয়া হবে। এমনকি আপনার স্ত্রী ওই অ্যাকাউন্টটি ৬৫ বছর পর্যন্তও চালাতে পারবেন। ফলে ভবিষ্যতে আপনার স্ত্রীকে অন্য কারোর মুখাপেক্ষী হয়ে থাকতে হবে না।

এই স্কিম এর মধ্যে আবার দুই ধরনের অ্যাকাউন্ট হয়। প্রথমটি হল Tier-1 এবং দ্বিতীয়টি হল Tier-2। Tier-1 হলো রিটায়ারমেন্ট অ্যাকাউন্ট যেটি সমস্ত সরকারি কর্মচারীদের খোলা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এবং Tier-2 টি হল ভলান্টিয়ার অ্যাকাউন্ট, এর মধ্যে যেকোনো বেতনভোগী ব্যক্তি টাকা জমা করতে পারবেন এবং যেকোনো সময় টাকা তুলতে পারবেন। এই স্কিমে ১৮ থেকে ৬০ বছর বয়স পর্যন্ত যেকোনো বেতনভোগী ব্যক্তি জমা করতে পারবেন। তাহলে এই স্কিমে অংশগ্রহণ করে আপনিও আপনার স্ত্রীকে আত্মনির্ভর করে তুলুন।

প্রতিবেদনটি লিখেছেন – অন্তরা ঘোষ

Related Articles

Back to top button