দেশ

নেতাজির জন্মবার্ষিকীতে ইন্ডিয়া গেটে নেতাজির হলোগ্রাম মূর্তি উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, বেজে উঠল ‘কদম কদম বাড়ায়ে যা’

আগেই ঘোষণা করা হয়েছিল যে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ইন্ডিয়া গেটে বসবে নেতাজির বিশাল মূর্তি। তবে যতদিন না এই মূর্তি তৈরি হচ্ছে, ততদিন সেখানে থাকবে নেতাজির হলোগ্রাম মূর্তি।

আজ, নেতাজির জন্মজয়ন্তীর দিনই এই হলোগ্রাম মূর্তি উদ্বোধন হওয়ার কথা ছিল। সেইমতোই কাজ হল। আজ সন্ধ্যে ৬ টা ৪০ মিনিটে ইন্ডিয়া গেটে নেতাজির হলোগ্রাম মূর্তির উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

এদিন নেতাজি মূর্তি উন্মোচন করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “ভারতের বীর সন্তান নেতাজিকে কোটি কোটি প্রণাম। এ এক ঐতিহাসিক দিন। স্বাধীন ভারতের বিশ্বাস যুগিয়ে ছিলেন নেতাজি। এই মূর্তি গোটা দেশের শ্রদ্ধাঞ্জলি। নেতাজি সেই ব্যক্তি, যিনি ব্রিটিশদের বলেছিলেন, ভিক্ষা নেব না, স্বাধীনতা অর্জন করব। এটা দুর্ভাগ্যের যে স্বাধীনতার পর বহু মহান দেশনায়কের বলিদানকে মুছে ফেলার চেষ্টা হয়েছে। এই মূর্তি স্বাধীনতার নায়কের প্রতি দেশের শ্রদ্ধাঞ্জলি”।

কলকাতায় নেতাজির বাসভবনে আসার অভিজ্ঞতার কথা এদিন স্মরণ করে নরেন্দ্র মোদী বলেন, “স্বাধীন ভারতের স্বপ্নপূরণ এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। পৃথিবীর কোনও শক্তি সেই স্বপ্নপূরণের লক্ষ্য আটকাতে পারবে না। আমাদের আরও অনেক পথ পেরোতে হবে”।

এদিন নেতাজি মূর্তি উদ্বোধনের কথা আগেই টুইট করে জানিয়ে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী। লিখেছিলেন, “আজ সন্ধে ৬টায় ইন্ডিয়া গেটে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর হলোগ্রাম মূর্তি উন্মোচন করার জন্য সকলের অসীম উদ্দীপনা দেখে আমি গর্বিত। পাশাপাশি এই অনুষ্ঠান থেকেই ‘সুভাষ চন্দ্র বসু আপদা প্রবন্ধন পুরস্কার’ও বিতরণ করা হবে”।

আজ, রবিবার ২০১৯, ২০২০, ২০২১ এবং ২০২২ সালের ‘সুভাষচন্দ্র বসু আপদা প্রবন্ধন পুরস্কার’ প্রদান করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ‘সুভাষ চন্দ্র বসু আপদা প্রবন্ধন পুরস্কার’-এর খাতে নির্বাচিত সংস্থা প্রতি ৫১ লক্ষ টাকা পুরস্কারমূল্য এবং ব্যক্তি প্রতি ৫ লক্ষ টাকা পুরস্কারমূল্য ধার্য করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

প্রসঙ্গত। ৩০ হাজার লুমেন ফোরকে প্রোজেক্টের মাধ্যমে নেতাজির এই থ্রিডি অবয়বটি হলোগ্রাফিক স্ক্রিনে তৈরি করা হয়েছে। আজ এই হলোগ্রাফিক মূর্তির উদ্বোধনই করেন প্রধানমন্ত্রী।

তবে নেতাজির মূর্তি তৈরির দায়িত্বে যে শিল্পী রয়েছেন, তাঁর মন্তব্যে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। ন্যাশনাল মডার্ন আর্ট গ্যালারির ডিরেক্টর অদ্বৈত গদানায়কের নেতৃত্বে এই মূর্তি তৈরি হচ্ছে। এদিন তিনি বলেন, “শুধু নেতাজির দৃঢ়তার পরিচয় দিতে কঠিন গ্রানাইট বাছা হয়নি। এর রং কালো। যা মহাকালী ও শ্রীকৃষ্ণেরও রং। ফলে নেতাজির মূর্তি তৈরি করতে গ্রানাইটের থেকে ভাল উপাদান আর কিছুই হতে পারত না”। শিল্পীর এই মন্তব্যেই তৈরি হল বিতর্ক।

Related Articles

Back to top button