দেশ

‘মা কালীর আশীর্বাদ সবসময় রয়েছে ভারতের সঙ্গে’, কালী বিতর্কের মধ্যেই দেবী কালীর স্তুতি প্রধানমন্ত্রীর গলায়

এক পরিচালকের তথ্যচিত্রের একটি পোস্টার আর এক সংসদের করা একটি মন্তব্য। এই দুই নিয়ে রাজ্য তথা দেশে বিতর্ক তুঙ্গে। দেবী কালীকে নিয়ে তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র যে বিতর্কিত মন্তব্যটি করেছেন, তার জেরে বঙ্গ তথা জাতীয় রাজনীতিতে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। এবার এই বিতর্কের মধ্যেই বাংলারই এক অনুষ্ঠানে কালী স্তুতি শোনালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বুঝিয়ে দিলেন যে দেবী কালী ও তাঁর আশীর্বাদ সবসময় দেশ ও দেশবাসীর সঙ্গেই রয়েছে।

আজ, রবিবার রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের পঞ্চদশ অধ্যক্ষ স্বামী আত্মস্থানন্দের জন্ম শতবার্ষিকী। এই অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে আয়োজন করা হয়েছে একটি অনুষ্ঠানের। এই অনুষ্ঠানে এদিন ভারচুয়ালি অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর এই অনুষ্ঠানেই তাঁর মুখে শোনা যায় মা কালী স্তুতি।

তিনি বলেন, “রামকৃষ্ণ পরমহংসদেব মা কালীকে স্পষ্ট দেখেছিলেন। মা কালীর চরণে নিজের সর্বস্ব সমর্পণ করেছেন। তিনি বলতেন, এই গোটা ভুবন, চরাচরেই ব্যপ্ত মায়ের চেতনা। এই চেতনাই বাংলার কালীপুজোয় দেখা যায়। এই চেতনাই গোটা ভারতের বিশ্বাসে দেখা যায়”।

এদিন প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন সেই মা কালীর চেতনাই স্বামী বিবেকানন্দকে বিশ্বমানব গড়ে তোলার জন্য উৎসাহিত করেছিল। প্রধানমন্ত্রীর কথায়, “কালী চেতনাতেই স্বামী বিবেকানন্দকে প্রদীপ্ত করেছিলেন রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব। এই চেতনাই স্বামী বিবেকানন্দকে পরম শক্তিশালী চরিত্র হিসাবে গড়ে তুলেছে। স্বামী আত্মস্থানন্দের ভিতরেও এই শক্তি আমি দেখেছি। ভক্তির নিশ্চলতা এবং শক্তি সাধনার সামর্থ্য দেখেছি। তাঁর কথার মধ্যেও মা কালীর প্রসঙ্গ উঠেই আসত। বিশ্বাস যখন পবিত্র হয়, আদ্যাশক্তি নিজেই আমাদের পথ প্রদর্শন করেন। মা কালীর আশীর্বাদ সবসময় ভারতের সঙ্গে আছে। এই আধ্যাত্মিক শক্তিই আজ ভারতকে বিশ্বকল্যাণের ভাবনায় শক্তি যোগাচ্ছে”।

আজ নিজের এই বক্তৃতাতে কোথাও কালী বিতর্ক নিয়ে কোনও মন্তব্য করেননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তবে প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যকে টুইট করে তৃণমূলকে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিজেপি আইটি সেল এর প্রধান অমিত মালব্য।

মোদীর এই বক্তব্যকে সামনে রেখে নাম না করে মহুয়া মৈত্রর বিরুদ্ধে আক্রমণ শানান বিজেপি নেতা অমিত মালব্য। টুইট করে তিনি লেখেন, “প্রধানমন্ত্রী ভক্তিভরে শ্রদ্ধার সঙ্গে মা কালীর কথা বলেছেন। শুধুমাত্র বাংলার জন্য নয়, সারা ভারতের কথা বলেছেন। অন্যদিকে, এক তৃণমূল সাংসদ মা কালীকে অপমান করেছেন। আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে তাঁকে রক্ষা করছেন”।

Related Articles

Back to top button